ঢাকা, বাংলাদেশ

রোববার, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

English

বৃত্তের বাইরে

সেজুঁতির উদ্যোক্তা হয়ে উঠার গল্প

উইমেনআই প্রতিবেদকঃ

প্রকাশিত: ২২:০৭, ১৩ আগস্ট ২০২৩; আপডেট: ২৩:৩১, ১৩ আগস্ট ২০২৩

সেজুঁতির উদ্যোক্তা হয়ে উঠার গল্প

উদ্যোক্তা সেজুঁতি

ছোটবেলা থেকেই ফ্যাশন বা ড্রেস ডিজাইনের প্রতি সেজুঁতির বরাবরই আকর্ষণ ছিলো। যেহেতু তার বাবাও একজন চিত্রশিল্পী ছিলেন সেই সূত্রেই হয়তো তার মনটাও সে রকমই শিল্পের প্রতি ঝুঁকেছিল,মায়ের ইচ্ছা না থাকলেও বাবার আসকারাতে চারুকলায় পড়েছিলেন বলে জানান সেজুঁতি।

উদ্যোক্তা হবার শুরু প্রসঙ্গে সেজুঁতি বলেন, অনেক আগে থেকেই নিজের জামা নিজে বানানো, সেলাই করা এগুলোর প্রতি আমার প্রচন্ড আকর্ষণ ছিলো। নিজের বানানো ভিন্ন ধরনের ড্রেস পড়তে সব সময়ই আমি পছন্দ করতাম।


চারুকলা থেকে পাশ করার আগেই বিভিন্ন কারণে চাকরিতে ঢুকি। মাস্টার্স করার আগেই নাম করা প্রতিষ্ঠান এশিয়াটিকে জয়েন করি। কিন্তু মনের ভিতরে ড্রেস ডিজাইনের প্রতি আকর্ষণটা থেকেই যায়, একসময় মনে হলো চাকরির পাশাপাশি নিজে কিছু করি, সেই চিন্তা থেকেই আমি আর দুজন মিলে একটা বুটিকসের ব্যবসা শুরু করি সেই থেকেই মূলত উদ্যোক্তা জীবনের শুরু।

বুটিক’স এর ডিজাইন সেকশনটা সেজুঁতি দেখতেন বাকি দুইজন অন্য সেকশন দেখতেন, বসুন্ধরায় আর মিরপুরে তাদের উদ্যোক্তা দুটি শাখা ছিলো। সেজুঁতি জানান, অফিস থেকে এসে আমি কারখানায় যেতাম, ডিজাইন সেকশনটা দেখতাম, কারিগরকে সব বুঝাতাম, রাতে একটা দুইটা পর্যন্ত ওখানে থাকতাম আবার পরের দিন সকালে অফিস করতাম। এতো পরিশ্রম করার পরও কোন রকম কষ্ট মনে হতো না। কাজটা আমার জন্য ভাললাগা ও নেশার মত ছিলো।

২০১৮ তে চাকরি ছেড়ে নিজের স্বপ্ন পূরনে মনোনিবেশ করি, নিজের ভালোলাগার দিকে এগিয়ে যাই। অবশেষে পুরোপুরি ভাবে উদ্যোগ শুরু করি।

সেজুঁতি নাসির জুঁই এর পেইজের নাম থৈথৈ। একটু ভিন্ন আঙ্গিকে উদ্যোগ শুরু করেছিলেন তিনি, যেহেতু তিনি একজন চিত্রশিল্পী, ছবি আঁকেন তাই নিজের আঁকা ছবি দিয়ে শাড়ি,ড্রেস করা শুরু করেন। 
উদ্যোক্তা সেজুঁতি জানান, হ্যান্ড পেইন্ট তো অনেকেই করে কিন্তু আমি ভাবে দেখলাম হ্যান্ড পেইন্ট না করে আমার আঁকা ছবিগুলো দিয়ে ডিজাইন করে তারপর ডিজিটাল প্রিন্ট করাবো তাতে হ্যান্ড পেইন্টের মজাটাও পাওয়া যাবে আবার খুব তাড়াতাড়ি বহু সংখ্যক পন্য বানানো যাবে এবং একটু কম প্রাইজেও দেওয়া যাবে। এরপর শুরু হলো আমার এক্সপেরিমেন্টাল যাত্রা। কাগজে ছবি আঁকি তারপর ওটা স্ক্যান করে কম্পিউটারে নিয়ে নেই তারপর কম্পোজিশন করে ডিজাইন করি শাড়ি বা কামিজের উপর, তারপর সেগুলো প্রিন্ট করাই।

সেজুঁতি জানান, প্রথমে শুরুতে প্রায় এক লাখ টাকার পুঁজি দিয়ে উদ্যোগ শুরু করেছিলাম। এখন প্রতিমাসে ৩০ হাজার টাকার মতো সেল হয়। আমার নিজস্ব কোন কর্মী নেই তবে পরোক্ষভাবে বহু মানুষের সাথে আমি কাজ করি। নিজের ডিজাইন শাড়ি,কামিজের নকশা বা প্রিন্টের উপর কিছু নারী কর্মী আছেন যারা কাঁথা স্টিচ করে দেন তাতে সেটায় আরো একটু ভিন্নতা আসে। তার প্রতিষ্ঠানে রয়েছে ডিজিটাল প্রিন্টের, হ্যান্ড পেইন্টের সুতি শাড়ি,মসলিন শাড়ি,কামিজ, কুর্তি,বেড কভার, কুশন কভার,শাল সহ নানা পণ্য।

তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য উদ্যোক্তা সেজুঁতি বলেন, জীবনের চলার পথটা অতোটা সহজ নয়, যদিও সামনে তাকালে মনে হয় রাস্তাটা সোজাই আছে, হেঁটে যেতে পারবো কিন্তু সামনে এগোতে গেলে শত বাধা আমাদেরকে ঘিরে ধরে কিন্তু তাই বলে থেমে গেলে হবে না, সেই বাধা অতিক্রম করে সামনে এগিয়ে যেতে হবে, হয়তো সে ক্ষেত্রে চলার গতি কিছুটা কমে হবে কিন্তু তবুও গন্তব্যে ঠিকই পৌঁছানো যাবে বলে তিনি মনে করেন।

ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে উদ্যোক্তা সেজুঁতি বলেন, যখন দেখি আমার ডিজাইন করা শাড়ি বা ড্রেস মানুষ আনন্দের সাথে পড়ছে ঠিক তখনই নিজের কাজকে সার্থক মনে হয়। ভবিষ্যতে নিজের একটা শো রুম দেবার ইচ্ছা আছে, যেখান থেকে মানুষ খুব সহজেই আমার ডিজাইনের পণ্য পাবে।

 সেঁজুতি নাসির জুঁই এর গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ার মেহেরপুরে,কিন্তু তার জন্ম ও বেড়ে ওঠা ঢাকাতেই। তিনি পড়াশোনা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগে। বাবা নাসির বিশ্বাস ছিলেন একজন চিত্রশিল্পী,আর মা লুৎফা বিশ্বাস ছিলেন গৃহিণী।

//এল//

এমপি নির্বাচিত হলেন সাংবাদিক ফরিদা ইয়াসমিন

বৃষ্টি উপেক্ষা করে প্যারিসে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ পালন

যশোরের চুড়ামনকাটিতে যুবক খুন

নোয়াখালীতে অস্ত্রসহ ৯ ডাকাত গ্রেফতার

 ভোটের রাতে গৃহবধূকে ধর্ষণ: আসামি গ্রেফতার

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হলেন ৫০ নারী

নারী উদ্যোক্তা তৈরিতে বিশ্বব্যাংকের বিশেষ তহবিল চান প্রধানমন্ত্রী

গোদাগাড়ীতে ১৬ প্রহর ব্যাপী মহানামযজ্ঞ ও লীলা কীর্তন 

মিথ্যা খবর ও গুজব ঠেকাতে নতুন আইন আসছে: আইনমন্ত্রী

নোয়াখালীতে বিনোদন কেন্দ্রের দাবিতে লিফলেট বিতরণ

ভালো অর্থনীতিক অবস্থানে বাংলাদেশ: বিশ্বব্যাংকের এমডি

পিলখানার পেছনে যারা ছিলো তাদের খুঁজে বের করা হবে: ফারুক খান

২ সন্তানকে ‘হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা’

সংরক্ষিত নারী আসনে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন

‘অনিয়মে রোগীর মৃত্যু হলে দায়ীদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স’