ঢাকা, বাংলাদেশ

সোমবার, অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৯, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২

English

অপরাধ

‘ফারদিনের মৃত্যু হয়েছে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণে’

উইমেনআই২৪ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৮:৪৭, ১৭ নভেম্বর ২০২২

‘ফারদিনের মৃত্যু হয়েছে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণে’

ফাইল ছবি

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র ফারদিন নূর পরশের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন দাখিল করেছে ভিক্টোরিয়া হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আঘাতজনিত কারণে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। মাথায় ও বুকের পাঁজরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। মূলত মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের ফলেই তাঁর মৃত্যু হয়।

বৃহস্পতিবার (১৭ নভেম্বর) দুপুরে ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালের আরএমও শেখ ফরহাদ এই ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন জেলা সিভিল সার্জনের কাছে জমা দেন।

সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে সিভিল সার্জন এএফএম মশিউর রহমান বলেন, ‘ফারদিনকে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। তাঁর বুকের দুপাশে দুই-তিনটি ভোঁতা অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন আমরা পেয়েছি। পাশাপাশি তাঁর মাথায় চার-পাঁচটি আঘাতের চিহ্ন ছিল। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের কারণেই তাঁর হয়েছে।’

ফারদিন হত্যা: লেগুনার চালক ও হেলপার নজরদারিতেফারদিন হত্যা: লেগুনার চালক ও হেলপার নজরদারিতে
এর আগে গত ৮ নভেম্বর দুপুরে ফারদিনের মরদেহ ময়নাতদন্তের পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতাল।

প্রসঙ্গত, গত ৪ নভেম্বর নিখোঁজ হন ফারদিন। ৫ নভেম্বর এ ঘটনায় তাঁর বাবা নুর উদ্দিন রানা রামপুরা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। ৭ নভেম্বর শীতলক্ষ্যা থেকে তাঁর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ৯ নভেম্বর তাঁর বাবা রামপুরা থানায় বান্ধবী বুশরাকে আসামি করে মামলা করেন। মামলাটি ডিবি তদন্ত করছে।

ফারদিন হত্যা নিয়ে সবশেষ আজ বৃহস্পতিবার ডিবি জানায়, ফারদিন হত্যাকাণ্ডে এক লেগুনার চালক ও সহকারীকে তাঁরা খুঁজছেন। ঘটনার দিন লেগুনাতে তোলা হয়েছিল ফারদিনকে। পরে লেগুনাটি যাত্রাবাড়ী থেকে নারায়ণগঞ্জের তারাবের দিকে চলে যায়।

নতুন পাওয়া এক সিসিটিভি ফুটেজ দেখে ডিবি জানায়, ফারদিন ঘটনার দিন রাত সোয়া ২টায় রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর লেগুনা স্ট্যান্ডে ছিলেন। তাঁকে সাদা গেঞ্জি পরা এক ব্যক্তি ডেকে লেগুনায় তোলেন, লেগুনায় আরও চারজন ছিলেন। পরে লেগুনাটি নারায়ণগঞ্জের তারাবের দিকে চলে যায়।

ডিবির প্রশ্ন, যে ব্যক্তি রাত সোয়া ২টার সময় যাত্রাবাড়ী লেগুনা স্ট্যান্ডে ছিলেন, তিনি কী করে রাত আড়াইটায় নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের চনপাড়া বস্তিতে যান? এর আগে র‍্যাবের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল, ফারদিনকে চনপাড়া বস্তিতে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনার সঙ্গে রায়হান নামে কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী জড়িত।

ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা কার্যালয়ের অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, ‘সাদা গেঞ্জি পরা এক লোক ফারদিনের সঙ্গে যাত্রাবাড়ী লেগুনা স্ট্যান্ডে কথা বলেন। এরপর তিনি লেগুনায় উঠে বসেন। লেগুনায় আরও তিন-চারজন ছিল। ফারদিনকে লেগুনায় উঠিয়ে বিশ্বরোডের দিকে যাওয়া হয়, এরপর সেটি সুলতানা কামাল সেতু পার হয়ে নারায়ণগঞ্জের তারাবের দিকে চলে যায়। যাঁরা ধরে নিয়ে গেছেন, তাঁরা আমাদের নজরদারিতে আছেন। লেগুনার চালক ও সহকারীকে খোঁজা হচ্ছে।’

হারুন অর রশীদ বলেন, ‘তারাব থেকে চনপাড়া যেতেই ২০ থেকে ৩০ মিনিট সময় লাগার কথা। লেগুনার চালক নজরদারিতে। তবে আমরা এখনই কংক্রিট তথ্যে আসছি না। তারাবের ঘটনা কি না, হত্যা কি না, সবকিছু তদন্ত করছি।’ ফারদিনের যাতায়াতের সব তথ্য নজরে এসেছে। তদন্ত শেষ না হলে বলা যাবে না বলেও জানান তিনি।

পোল্যান্ডকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে ফ্রান্স

শাকিব-অপুর সম্পর্ক বিষয়ে কিছুই জানতাম না: বুবলী

জানুয়ারি থেকে নতুন সূচিতে চলবে ট্রেন

ব্যাংকে ১০ লাখ টাকা জমা দিতে কোনো প্রশ্ন নয়

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

সংবিধান সংশোধন দিবা স্বপ্ন: কাদের

সশস্ত্র বাহিনীর ৩ কর্মকর্তার রদবদল

ব্রাউজার স্লো? গতি বাড়াবেন যেভাবে

‌‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে তৃতীয় শ্রেণি থেকে কোডিং শেখানো হবে’

ভারতের বিপক্ষে টাইগারদের জয়

নতুন বছরে কোনো অর্থনৈতিক চাপ থাকবে না: পরিকল্পনামন্ত্রী

মাদকের বিরুদ্ধে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ইরানের নৈতিকতা পুলিশকে বিলুপ্ত ঘোষণা

জামাত-বিএনপির সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও নাশকতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ

মারা গেছেন অভিনেত্রী মায়া ঘোষ 

Nagad Social Islami Bank Limited