ঢাকা, বাংলাদেশ

সোমবার, মাঘ ১৬ ১৪২৯, ৩০ জানুয়ারি ২০২৩

English

এক্সক্লুসিভ

জমে উঠেছে গাইবান্ধার ঈদ বাজার

প্রকাশিত: ০০:০০, ২৮ এপ্রিল ২০২২

জমে উঠেছে গাইবান্ধার ঈদ বাজার

মো. রিফাতুন্নবী রিফাত: করোনা ভাইরাসের প্রকোপ কিছুটা কমে আসায় দুবছর পর এবার মন-প্রাণখুলে ঈদ উৎসব পালনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন এ জেলার সাধারণ মানুষ। আর দেশের প্রধান এ ধর্মীয় উৎসবকে ঘিরে পোশাক ও প্রসাধন ব্যবসায় ফিরে এসেছে পুরানো সেই গতি, সচল হয়েছে অর্থনৈতিক চাকা।

টবে, শুধু পোশাক, প্রসাধনই নয়, ঈদকে সামনে রেখে সংশ্লিষ্ট সব খাতে কেনাকাটা বেড়েছে। প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত বিভিন্ন বিপণিবিতানে চলছে কেনাবেচা। এতে, নতুন করে চাঙ্গা হয়েছে গ্রামীণ অর্থনীতি, আর অর্থনৈতিক কার্যক্রমে এক ধরনের চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

তবে ক্রেতাদের অভিযোগ, আগের চেয়ে বেড়েছে সব কাপড়ের দাম।

ব্যাংক এবং স্থানীয়  সূত্রে জানা গেছে, ঈদকে সামনে রেখে আত্মীয়-স্বজনের কাছে প্রবাসীরা বেশি করে রেমিটেন্স পাঠাচ্ছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বৈশাখের প্রচণ্ড গরমে স্বাভাবিক কাজকর্ম করতে হাঁপিয়ে উঠছেন সবাই। কিন্তু ঈদের মার্কেটে গ্রীষ্মের দাবদাহ কোনো নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারছে না। প্রচণ্ড গরম সত্ত্বেও ঈদের কেনাকাটায় ভিড় জমেছে এখানকার মার্কেটগুলোতে। রোদে পুড়ে, গরমে ঘেমেও থেমে নেই ঈদের কেনাকাটা।

অন্যদিকে প্রায় দুবছর পর এবার ঈদ বেচাকেনাকে কেন্দ্র করে দোকানদার-ব্যবসায়ীর মুখে হাসি ফুটেছে। করোনার প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ের কবলে সবচেয়ে বেশি চাপে পড়েছিলেন ক্ষুদ্র-মাঝারি মানের ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তারা। তাদের সারা বছরের প্রায় অর্ধেক বেচাকেনা হয়ে থাকে ঈদের এই সময়টাতে। গত দুবছরের সেই দুঃসময় কাটিয়ে আবারও গাইবান্ধার বাজারে ‘ঈদ’র ভিড় জমেছে। ফুটপাত থেকে মার্কেটগুলো ঈদ কেনাকাটায় আবারও চাঙ্গা হয়েছে।

বিক্রেতারা জানালেন, করোনার কারণে বিগত দুইবছরের  অর্থনৈতিক ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার আশা করছেন তারা। একইভাবে দম ফেলার ফুরসত পাচ্ছেন না ফুটপাতের দোকানিরাও। এদিকে, রোজার প্রথম থেকেই ব্যস্ততা বেড়েছে দর্জিবাড়িতেও।

গাইবান্ধার সব ধরণের ক্রেতার জন্য সবচেয়ে বড় বিপণিবিতান হচ্ছে জেলা শহরের স্টেশন রোডে সালিমার সুপার মার্কেট, তরফদার ম্যানশন, ইসলাম প্লাজা, পৌর সুপার মার্কেট, শাপলা মার্কেট কাচারীবাজার থানপট্টি।

সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত ক্রেতারা ঘুরে দেখছেন এসব বাজারের বিভিন্ন পণ্যের দোকান। ঈদে সবচেয়ে বেশি চাহিদা থাকে পোশাকের। জুতা, স্যান্ডেল, গহনা, ঘর-গৃহস্থালির পণ্য, শখের পণ্যের বেচাকেনাও বাড়ে। প্রসাধনীর বাজারে তৈরি হয় বাড়তি চাহিদা। এছাড়া টুপি, আতর, তসবিহ, চশমা, ঘড়ির দিকেও থাকে চোখ। সবচেয়ে বেশি ভিড় হচ্ছে কাপড়ের দোকানে। কাপড়ের মধ্যে পছন্দের শীর্ষে রয়েছে বেনারশি শাড়িসহ নানা রকমের শাড়ি ও থ্রি পিস। এরপরেই গহনা ও প্রসাধনী কিনতে ছুটছেন নারীরা।

ক্রেতাদের অভিযোগ, এবার ঈদের পোশাকে গলাকাটা দাম নিচ্ছেন দোকানিরা। বিশেষ করে রেডিমেড পোশাকের দোকানগুলোতে একদরের নামে গলাকাটা দাম রাখছে। দাম বেশি থাকায় পোশাক কিনতে ক্রেতাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। ঈদ কেনাকাটায় দামে অস্বস্তি বাড়ছে তাদের। অতি মুনাফালোভী ব্যবসায়ীদের হাত থেকে বাজার মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনার দাবি জানান ভুক্তভোগীরা।

শহরের স্টেশন রোডের ইসলাম প্লাজা মার্কেট। এখানে কথা হয় ক্রেতা অমিছা বেগমের সাথে। তিনি বলেন, ছোট ছেলে-মেয়েদের কাপড় না কিনলেই নয়, তাই মার্কেটে এসেছেন। কিন্তু যে দাম তাতে কিনতে কিছুটা হিমসিম খেতে হচ্ছে।  নিত্যপণ্যের দামের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে পোশাকের দামও। নিজেদের জন্য কিছু কিনবেন কীনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যেভাবে সবকিছুর দাম বাড়ছে তাতে তাদের মতো মধ্যবিত্ত আয়ের মানুষের পক্ষে এখন খাবার কেনাটাই কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর বাইরে যেটুকু না হলেই নয় সেটুকুই। এর বেশি ক্রয়ের সামর্থ্য নেই।’

শহরের সালিমার সুপার মার্কেটের বন্ধন ফ্যাশনের মালিক ইদ্রিস মিয়া বলেন, 'এবার ঢাকাসহ অন্যান্য এলাকার পাইকারি বাজার থেকেই বেশি দামে পণ্য কিনতে হয়েছে তাদের। তাই বেশি দামেই  বিক্রি করতে হচ্ছে।

এদিকে শহরের আমিন জুয়েলার্স'র মালিক আজহারুল ইসলাম সন্জু বলেন,' বিগত দু'বছরের চেয়ে এবছর এ ঈদে একটু 'সোনার গহনা' বেচাকেনা বেড়েছে। তবে সোনার দাম প্রচুর থাকায় আগের মতো তেমন আর গহনা কিনছেন না ক্রেতারা। তারপরেও টুকটাক চলছে বেচাকেনা, যা হচ্ছে আলহামদুলিল্লাহ।

এদিকে জেলা পুলিশের সহযোগিতায় শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে মোড়ে মোড়ে পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে,  সার্বক্ষণিক দায়িত্বে রয়েছেন তারা। কোনোরকম অপ্রীতিকর ঘটনার খবর এখনও পাওয়া যায়নি।

উইমেনআই২৪//ইউ//২৮-০৪-২০২২//২:১৮ পিএম//

শুটিংয়ে দগ্ধ অভিনেত্রী শারমিন আঁখি

যারা পাচ্ছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০২১

আওয়ামী লীগ কখনো পালায় না: প্রধানমন্ত্রী

এইচএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ ৮ ফেব্রুয়ারি

একাদশে চূড়ান্ত ভর্তির সময় বাড়ল

গুলিবিদ্ধ ওড়িশার স্বাস্থ্যমন্ত্রী মারা গেছেন

ইংল্যান্ডকে উড়িয়ে ইতিহাসের সাক্ষী ভারতের মেয়েরা

সাবরিনা এসএসসি পাস করেন ৮ বছর বয়সে

শিশুদের জন্য নিরাপদ পরিবেশ গড়ে তোলার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

অন্তর্বর্তীকালীন নির্বাচনের সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান

দেশের প্রথম স্কুল অ্যাপ ‘শিক্ষায়তন’

বাবার কেনা কেক খেয়ে দুই বোনের মৃত্যু

সিৎসিফাসকে হারিয়ে নাদালের পাশে জোকোভিচ

গ্রামজুড়ে শুধুই ‘জ্যান্ত’ পুতুল! 

‘বিদ্যুৎ, গ্যাস ও তেলের দাম বাড়াতে পারবে সরকার’

Social Islami Bank Limited