ঢাকা, বাংলাদেশ

সোমবার, মাঘ ১৬ ১৪২৯, ৩০ জানুয়ারি ২০২৩

English

জাতীয়

ক্ষমতাকাঠামোসহ ৭ ক্ষেত্রে রদবদল চায় গণপরিষদ

উইমেনআই২৪ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৩:৪৪, ১ ডিসেম্বর ২০২২; আপডেট: ১৩:৫৫, ১ ডিসেম্বর ২০২২

ক্ষমতাকাঠামোসহ ৭ ক্ষেত্রে রদবদল চায় গণপরিষদ

ফাইল ছবি

বাংলাদেশে বর্তমান সরকারের ক্ষমতাকাঠামোর ৭ টি ক্ষেত্রে রদবদল চায় গণপরিষদের নেতৃবৃন্দ।এই ৭টি ক্ষেত্রের মধ্যে দেশের নির্বাচন ব্যবস্থা, বিচার বিভাগ,বা সংসদ, আইন -শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী এবং প্রশাসন, স্থানীয় সরকার, অর্থনৈতিক খাতে এবং সরকারের ক্ষমতাকাঠামো উল্লেখ্য। 

বৃহস্পতিবার (১ডিসেম্বর) রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে জহুরুল হোসেন চৌধুরী হলে বেলা ১১ঃ০০ টায় বাংলাদেশ গণপরিষদ আন্দোলন কর্তৃক আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। 

সংবাদ সম্মেলনে গণপরিষদের জাতীয় পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ বলেন, 'গত ৫০ বছরে এইসব অভিজ্ঞতা তাদের কাছে গণপরিষদ নির্বাচন এবং গণপরিষদের (সংবিধান সভা) মাধ্যমে সংবিধান সংস্কারের প্রয়োজনীয়তাকে অনিবার্য করে তুলেছে।'

'সংবিধান সংস্কারে গণপরিষদ নির্বাচনের বিকল্প নাই' এমন কথার প্রসঙ্গে গণপরিষদের নেতৃবৃন্দ তাদের এই ৭ টি ক্ষমতাকাঠামো  রদবদলের লক্ষ্যে কিছু দাবীতে তাদের আন্দোলন গড়ে তুলবেন বলেও জানান।দাবি গুলো হলো,

১। বাংলাদেশের সংবিধানের ক্ষমতাকাঠামো রদবদল করে 'রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি ' অংশ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে গণপরিষদ (সংবিধান সভার)নির্বাচন করা।

২। গণপরিষদ (সংবিধান সভা) নির্বাচনের জন্য আন্দোলনকারী সকল রাজনৈতিক দল,সংগঠনের সমন্বয়ে একটি অন্তর্বর্তী জাতীয় সরকার গঠন করা।

৩। অন্তবর্তী জাতীয় সরকার গঠনের জন্য বর্তমান সরকারকে পদত্যাগ দিয়ে বাধ্য করা। 

সংবাদ সম্মেলন এ গণপরিষদের প্রধান সমন্বয়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা নাঈম জাহাঙ্গীর বলেন,সংবিধানের ক্ষমতা কাঠামো পাল্টাতে হলে সংবিধান সভা বা গণপরিষদ সভার নির্বাচন করতে হবে। আমাদের দেশে ১৯৪৬ সালে এবং ১৯৭০ সালে, এই ২বার এই ধরনের নির্বাচন হয়েছিলো। ১৯৭০ সালের নির্বাচনের আগেই সংবিধানের কোন কোন ক্ষেত্র ঠিক করতে হবে তার মূল দিক গুলি নির্বাচনী অর্ডিন্যান্সের (এল.এফ.ও) মাধ্যমে আগাম জানায়ে দেয়া হয়েছিলো। ৭০ এর নির্বাচনের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ দিক হলো, এ নির্বাচনটি ছিলো একই সাথে ২ ধরনের নির্বাচন। এই নির্বাচনে 'ন্যাশনাল এসেম্বলি' বা জাতীয় সংসদে নির্বাচিতদের প্রথম দায়িত্ব ছিলো সংবিধান সভা বা গণপরিষদ হিসাবে সংবিধান প্রণয়ন করার এবং এই ম্যান্ডেটও তাদের ছিলো যে, সংবিধান গৃহীত হওয়ার পর, গৃহীত সংবিধানের আলোকে তারাই সরকার গঠন করতে পারবে। বাংলাদেশ আজ যে অবস্থায় এসে দাড়িয়েছে তাতে বর্তমান সংকট থেকে বের হতে হলে সংবিধানের কোন কোন ক্ষেত্র সংস্কার করা আবশ্যক তার একটি রুপরেখা আমাদেরও প্রয়োজন হবে।

তবে এক্ষেত্রে 'সংবিধান সংশোধন' এবং 'সংবিধান সংস্কার'-এর পার্থক্য সম্পর্কে আমাদের স্পষ্ঠ ধারনা রাখা প্রয়োজন। সংবিধান সংশোধন করার পদ্ধতির বিষয়ে সাধারনভাবে সংবিধানেই বলা থাকে এবং এই ক্ষমতা সাধারনত জাতীয় সংসদকেই দেয়া হয়। কারন 'সংশোধন'-এর মাধ্যমে কখনো সংবিধানের মৌলিক কোন পরিবর্তন করা হয় না বরং ছোটখাটো ভুলভ্রান্তি বা অস্পষ্ঠতা কখনো কারো চোখে ধরা পড়লে তা সারিয়ে তোলার জন্য সংবিধান সংশোধন করা হয়ে থাকে। কিন্তু আমাদের সংবিধানের যে ধরনের সংস্কারের প্রয়োজন দেখা দিয়েছে তা কোন বানান সংশোধন বা ছোটখাটো বা একটু-আধটু পরিবর্তনের বিষয় নয়। বরং আমাদের রাষ্ট্রের যে মুলনীতি নির্ধারন করা হয়েছে এবং তা বাস্তবায়নের জন্য রাষ্ট্রের যে ধরনের ক্ষমতা কাঠামো নির্ধারন করা হয়েছে তা পরস্পর বিরোধী। প্রয়োজন হলো রাষ্ট্রের ক্ষমতা কাঠামোকে এমনভাবে পরিবর্তন করা যাতে এই বৈপরীত্য আর না থাকে এবং সেটা করতে হলে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, নির্বাচন, সংসদ, বিচার বিভাগ, প্রশাসন, আর্থিক খাত, স্থানীয় সরকার ইত্যাদি অনেকগুলি ক্ষেত্রেরই সংস্কার করতে হবে।

সভাপতিত্ব করে গণপরিষদ আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা নাঈম জাহাঙ্গীর। 

---শাওন---

ইউ

শুটিংয়ে দগ্ধ অভিনেত্রী শারমিন আঁখি

যারা পাচ্ছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০২১

আওয়ামী লীগ কখনো পালায় না: প্রধানমন্ত্রী

এইচএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ ৮ ফেব্রুয়ারি

একাদশে চূড়ান্ত ভর্তির সময় বাড়ল

গুলিবিদ্ধ ওড়িশার স্বাস্থ্যমন্ত্রী মারা গেছেন

ইংল্যান্ডকে উড়িয়ে ইতিহাসের সাক্ষী ভারতের মেয়েরা

সাবরিনা এসএসসি পাস করেন ৮ বছর বয়সে

শিশুদের জন্য নিরাপদ পরিবেশ গড়ে তোলার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

অন্তর্বর্তীকালীন নির্বাচনের সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান

দেশের প্রথম স্কুল অ্যাপ ‘শিক্ষায়তন’

বাবার কেনা কেক খেয়ে দুই বোনের মৃত্যু

সিৎসিফাসকে হারিয়ে নাদালের পাশে জোকোভিচ

গ্রামজুড়ে শুধুই ‘জ্যান্ত’ পুতুল! 

‘বিদ্যুৎ, গ্যাস ও তেলের দাম বাড়াতে পারবে সরকার’

Social Islami Bank Limited