ঢাকা, বাংলাদেশ

শনিবার, আষাঢ় ১ ১৪৩১, ১৫ জুন ২০২৪

English

জাতীয়

সংলাপের আর কোনো সুযোগ নেই: রাশেদা সুলতানা

উইমেনআই প্রতিবেদকঃ

প্রকাশিত: ২০:৫৬, ২০ নভেম্বর ২০২৩

সংলাপের আর কোনো সুযোগ নেই: রাশেদা সুলতানা

নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা ,সংগৃহীত ছবি

নির্বাচন ভবনের নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, পুলিশ বাহিনী নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রণেই আছে এবং থাকবে বলে দাবি করেছেন তিনি। নির্বাচন কমিশনার বেগম রাশেদা সুলতানা আজ সোমবার (২০ নভেম্বর) এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, এখন যেহেতু তারা আমাদের কাছে ন্যস্ত হয়েছেন, আমি মনে করি তারা আমাদের নিয়ন্ত্রণেই আছেন এবং থাকবেন। না থাকলে ব্যবস্থা হয়ে যাবে, ইনশাল্লাহ। গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বার্তা যিনি আইনের ব্যত্যয় করবেন, যিনি নিরপেক্ষতা হারাবেন, যিনি ঠিক মতো কাজ করবেন না, তার জন্য আইনে যে সমস্ত ব্যবস্থা আছে, তা প্রয়োগ করব। যারা নিরপেক্ষতা হারাবেন অ্যাকশনটা কী হবে এমন প্রশ্নের প্রশ্নের জবাবে রাশেদা সুলতানা বলেন, প্রিজাইডিং অফিসারকে কিন্তু আমরা বরখাস্ত করেছি ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও লক্ষ্মীপুরের উপনির্বাচনে অনিয়মের কারণে। আইনের মধ্যে আমাদের যতটা ক্ষমতা আছে, তা প্রয়োগ করব। এই ব্যাপারে আমাদের কোনো দ্বিধা-দ্বন্দ্ব নাই। আমরা একদম বদ্ধপরিকর যে, যেভাবেই হোক একটা সুন্দর নির্বাচন জাতীকে উপহার দেবো। সংসদ নির্বাচনে সেনাবাহিনী (সশস্ত্র বাহিনী) প্রয়োজন হলে থাকবে। কয়দিন কিভাবে মোতায়েন করা হবে, সে সিদ্ধান্ত আমরা এখনো প্লান করিনি বলেও জানান তিনি। আমরা যদি বুঝি যে থাকবে, আসবে তারা। অপর এক প্রশ্নের উত্তরে এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, সংকট সমাধানে আমি বিশ্বাস করি তারা আসবে। যেহেতু সময় আছে, যদি ওনারা (বিএনপি) মনে করেন স্পেসটা কাজে লাগাবেন। তফসিল যেহেতু হয়ে গেছে, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপের আর কোনো সুযোগ নেই। যতটুকু সুযোগ ছিল, আমরা বারবার ডেকেছি, তারা আসেনি। তবে আসতে চাইলে আমরা নিষেধ করব, তা নয়। সবাই না এলে এক ধরনের শূন্যতা, হতাশা যাই বলেন, জাতির কাছে সেটা তো আছেই। এটা অস্বীকার করার তো কোনো উপায় নেই। এক প্রশ্নের জবাবে সাবেক এই জেলা জজ বলেন, একজন এমপি সংসদ নির্বাচনের আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন বলে রিটার্নিং কর্মকর্তা প্রতিবেদন দিয়েছেন। আমরা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব, দেরি হবে না। যারা এখন অনিয়ম করছেন, তারা আদৌ প্রার্থী হবেন কি-না আমরা নিশ্চিত না। তবে বড় ধরনের কিছু হলে তো আমরা অবশ্যই করব। আরও বলেন, আমি বিশ্বাস করি, এই পর্যন্ত আমরা যতগুলো নির্বাচন করেছি, হাজারের ওপরে প্রায় নির্বাচন হয়েছে, লোকাল ইলেকশন, বাই ইলেকশন। আমরা কখনোই কিন্তু ওনাদের (সরকারের) কাছ থেকে অসহযোগিতামূলক কোনো আচরণ, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বা যারা ভোটের মাঠে কাজ করেছেন, তাদের কাছ থেকে পাইনি। দুই-একটা ঘটনা আলাদা। নির্বাচনকালীন নির্বাচন কমিশনের অধীনে যতগুলো বিভাগ আসবে, যে সহযোগিতা চাইব তা দিতে সংবিধান অনুযায়ী দিতে তারা বাধ্য। না দিলে তো নির্বাচনই হবে না।

//এল//

মাংস খেয়ে সুস্থ থাকতে করণীয়

শিশুদের নিয়ে ঈদ উৎসব করলো দশমিক ফাউন্ডেশন

পদ্মা সেতু: একদিনে প্রায় ৫ কোটি টাকা টোল আদায়

বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে নাঈমুল ইসলাম খানের শ্রদ্ধা

নগরবাসীকে নিরাপদ ঈদ পালনে পুলিশের যেসব পরামর্শ

ঢাকায় নকল ওষুধ তৈরির কারখানা, গ্রেফতার ৩

বিএনপির ভোটের অধিকার নিয়ে কথা হাস্যকর: প্রধানমন্ত্রী

আক্রান্ত হলে ছাড় নয়, সেন্টমার্টিন প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের

বনানীতে বাসচাপায় মোটরসাইকেল আরোহীর প্রাণহানি

এমপি আনার হত্যা, শিমুল-তানভীর-শিলাস্তির পর বাবুর দায় স্বীকার

সালাম গোলন্দাজ হত্যা মামলার স্বাক্ষীদের বিরুদ্ধে মামলা

এশিয়া কাপ হকিতে থাইল্যান্ডকে হারালো বাংলাদেশ নারী দল

সন্ধ্যার মধ্যে ৬০ কিমি বেগে ঝড়ের শঙ্কা

বিএনপির শীর্ষ ৩৯ পদে রদবদল

বাংলাদেশে তুফানের মুখে মিমি!