রবিবার, ১২ আষাঢ় ১৪২৯
২৬ জুন ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

সাফল্যের অসংখ্য মালাগাঁথা দলের নাম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান: ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন জন্ম নেওয়া আওয়ামী লীগের ৭৩ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ। ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের হাত ধরেই বাংলাদেশের স্বাধীনতা। আওয়ামী লীগ এমন একটি রাজনৈতিক দল, স্বাধীন হওয়ার অর্ধশত বছর অতিক্রম করার পরেও  দেশ ও  দেশের জনগণের কাছে আবেদন একটুও কমেনি। আওয়ামী লীগের প্রয়োজনীয়তা বা উপযোগীতা দিন দিন আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। 
৭১’র মুক্তিযুদ্ধ স্বাধীনতাসহ যতো অর্জন তা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অর্জন। স্বাধীনতা যুদ্ধে  নেতৃত্ব ও স্বাধীনতা অর্জন, দেশের সংবধিধান প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন, যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে পুনর্গঠনসহ দেশকে খাদ্য, বাসস্থান, কৃষি উৎপাদন এবং যোগাযোগ উন্নয়নের মহাসড়কে নিয়ে গিয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। তারপরেও  প্রতিষ্ঠার পর থেকে বেশিরভাগ সময়ই কেটে গেছে লড়াই আর সংগ্রামে। হত্যা, ষড়যন্ত্র সবই দেখেছে এ দলটি। এরই মধ্যে ৭৩ বছর পূর্ণ করল আওয়ামী লীগ নামক রাজনৈতিক দলটি।
৭৪ বছরে পা দিল টানা তৃৃতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রের ক্ষমতায় থাকা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে দেশের স্বাধীনতা অর্জনে নেতৃত্ব দেয় আওয়ামী লীগ। ‘বঙ্গবন্ধু, আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশ’ ইতিহাসে এই তিনটি নাম একই সুত্রে গাঁথা। পুরান ঢাকার কে এম দাস লেনের ঐতিহ্যবাহী রোজ গার্ডেনে আওয়ামী মুসলিম লীগ নামে এই দলের আত্মপ্রকাশ ঘটলেও পরে শুধু আওয়ামী লীগ নাম নিয়ে অসাম্প্রদায়িক সংগঠন হিসেবে বিকাশ লাভ করে।
দেশের অন্যতম প্রাচীন এই দল প্রতিটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক ও সামাজিক আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়ে এদেশের গণমানুষের সংগঠনে পরিনত হয়। প্রতিষ্ঠার শুরুতে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ছিলেন মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং শামসুল হক। পকিস্তানের সামরিক শাসন, জুলুম, অত্যাচার-নির্যাতন ও শোষনের বিরুদ্ধে সব আন্দোলন-সংগ্রামে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে দলটি। স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয় ও আওয়ামী লীগের ইতিহাস একসূত্রে গাঁথা।
এই রাজনৈতিক দলটি আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও  চেতনাকে সমুন্নত  রেখে জনসমর্থন নিয়ে সরকার গঠনের ক্ষমতা রাখে। দেশে বাম-ডান বহু রাজনৈতিক দল আছে। এরইমধ্যে কোনো কোনো রাজনৈতিক দলের অস্বিত্বই হারিয়ে গেছে। কিন্তু সকল ষড়যন্ত্র, বাধাবিপত্তি অতিক্রম করে শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজয়ের পতাকা এখন বাংলার আকাশে-বাতাসে উড়ছে এবং ভবিষ্যতেও উড়বেই।
আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হলো ধনী-গরীব, নারী-পরুষ, ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে একটি সমতা, সাম্য ও ন্যায়ের সমাজ প্রতিষ্ঠা করা। রাষ্ট্রের কর্মকান্ড হবে জনগণের জন্য কল্যাণকর, উন্নত বিশে^র সাথে তাল মিলিয়ে প্রগতির পথকে ধওে রেখে গণতন্ত্র ও সমাজতন্ত্রকে ধারণ করা, অসাম্প্রদায়িক  চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে বাঙালি জাতীয়তাবাদকে প্রতিষ্ঠিত করা এবং বাংলার নিজস্ব সংস্কৃতি, ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে চর্চার মাধ্যমে বিকশিত করা। কেউ খাবে আর কেউ খাবে না সেই নীতিকে চিরতরে বিদায় করা। সমাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করা।
১৯৫৫ সালে অসাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক আদর্শের অধিকতর প্রতিফলন ঘটনারোর লক্ষ্যে নাম করা হয় আওয়ামী লীগ। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন যা বর্তমানে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে বিশ^ব্যাপী স্বীকৃত, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন ও পরবর্তী সময়ে শিক্ষা আন্দোলন, ১৯৬৬ সালে ৬ দফা দাবি পেশ, আগড়তলা ষড়যন্ত্র মামলা মোকাবিলা, ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান, ১৯৭০ সালের নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয় অর্জন, একাত্তরে স্বাধীনতা যুদ্ধে নেতৃত্ব দান এবং যুদ্ধকালীন স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সরকার গঠন যা মুজিবনগর সরকার নামে সর্বাধিক পরিচিত। ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা অর্জনের পর যুদ্ধ বিধ্বস্ত বাংলাদেশকে পুনর্গঠন, ১৯৭৫ সালে জানুয়ারিতে সকল শ্রেণী পেশার মানুষের মুক্তির লক্ষ্যে বাকশাল গঠন যা দ্বিতীয় বিপ্লবের শুভ সূচনা নামে পরিচিত। 
১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যার পর সামরিক ও স্বৈরাচার সরকার হটাতে এবং দেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনরায় প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে মূল  নেতৃত্ব দান, ১৯৯১ সালে নির্বাচনে অংশ নিয়ে প্রধান বিরোধী দলের অবস্থান অর্জন করা, ১৯৯৬ সালের জাতীয় নির্বাচনে জয় লাভ করে দীর্ঘ ২১ বছর পর পুনরায় সরকার গঠন করা, ২০০১ সালের নির্বাচনে অংশ নিয়ে প্রধান বিরোধী দলের অবস্থান অর্জন করা এবং এ সময়ে জনগণের ভোটের অধিকার নিশ্চিত করতে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবির আন্দোলনে মূল নেতৃত্ব দেওয়া, ২০০৯ সাল, ২০১৪ সাল এবং ২০১৯ সালে জাতীয় নির্বাচনে জয়লাভ করে একটানা তিন বার সরকার গঠন, সরকার গঠনের পর বঙ্গবন্ধুর হত্যা মামলার কার্যক্রম শুরু করার প্রধান বাধা কালো আইন ইনডেমেনেটি অধ্যাদেশ বাতিল করা, ভারতের সাথে যুক্তথাকা নদীসমূহের পানির ন্যায্য হিস্যা বুঝে  পেতে ঐতিহাসিক ফারাক্কা চুক্তি করা, সীমান্তের করিডোর সমস্যা দূর করা, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার রায় নিশ্চিত করা এবং বঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফাঁসীর রায় কার্যকর করা, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা, জাতীয় চার নেতা হত্যা মামলার বিচার শুরু করা, বাংলাদেশের সম পরিমাণ আয়তনের সমুদ্র বিজয় করা, মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ, ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন করা, পদ্মাসেতু,  মেট্রোরেলসহ মেগাপ্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন, খাদ্যে স্বয়ংস্বম্পূর্ণতা অর্জন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি,  যোগাযোগ এবং অবকাঠামোর উন্নয়নে অভাবনীয় সাফল্য কত শত অর্জন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী লীগ সরকারের। এত অর্জনের পর তো এ কথা বলাই যায় যে, সাফল্যের অসংখ্য ফুল দিয়ে বিজয়ের মালা গাঁথা দলের নাম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। যে দলটি সাফল্যের নতুন রেকর্ড গড়ে পুরাতন রেকর্ড ভেঙ্গে এগিয়ে চলছে আওয়ামী লীগ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।
১৯৭৫ পরবর্তী দিশেহারা সমগ্র জাতিকে উদ্ধারে আওয়ামী লীগ সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করে জননেত্রী শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরেই স্বাধীন বাংলাদেশে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ পরিপূর্ণতা লাভ করে বর্তমানের আলোকিত গৌরবোজ্জ্বল অবস্থানে পৌঁছেছে।
আগামী জাতীয় নির্বাচনে জনগণের ভোটের মাধ্যমে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করবেন দেশের জনগণ। জনগণের রায় নিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আবারো সরকার গঠন করবে এবং জননেত্রী  শেখ হাসিনা সরকার পরিচালনার দায়িত্ব নিয়ে সোনার বাংলাদেশকে উন্নত রাষ্ট্র উপহার দিবেন বিশে^র মানচিত্রে। বঙ্গবন্ধু দিয়েছেন স্বাধীন রাস্ট্র একটি ভূখন্ড আর মানচিত্র আর স্বাধীন পতাকা। আমাদের মাননীয়  প্রধানমন্ত্রী  শেখ হাসিনা উপহার দিয়েছেন ক্ষুধামুক্ত দারিদ্র মুক্ত উন্নয়ণশীল উন্নত বাংলাদেশ।
পরিশেষে বলবো, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী সফল হোক। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনা শতায়ু লাভ করুন। বাংলাদেশ চিরজীবী  হোক। বাংলার প্রতিটি মানুষের উন্নত জীবন নিশ্চিত হোক। জয় বাংলা। 
লেখক: অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, অধ্যাপক ও  চেয়ারম্যান, রেসপিরেটরি  মেডিসিন বিভাগ ও  কোষাধ্যক্ষ, বঙ্গবন্ধু  শেখ মুজিব  মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়। 


অনুলেখক: শাকী খন্দকার

উইমেনআই২৪ডটকম//এল// 12.26 pm
 

Mujib Borsho

সর্বশেষ

শীর্ষ সংবাদ:
২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোরবানির পশুর বর্জ্য অপসারণের নির্দেশ         ঈদে দেখা মিলবে পরীমনির         ২৫ ইউপি ও তিন পৌরসভায় আ.লীগের প্রার্থী যারা         পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ         শহীদ জননী জাহানারা ইমাম স্মরণে মোমবাতি প্রজ্বলন         কাল থেকে পদ্মা সেতুতে ছবি তুললেই যে শাস্তি         সিরিজ জিতলো নারী ফুটবল দল         দেশে বন্যায় মৃত্যু বেড়ে ৮৪         খালোদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল         সোমবার পদ্মা সেতু নিয়ে ষড়যন্ত্র রুলের শুনানি         রাজধানীকে আর প্লাবিত হতে দেব না: তাপস         পদ্মা সেতুর নাট খুলে ভাইরাল হওয়া যুবক আটক         ঢাবির ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল সোমবার         রাষ্ট্রের মদদে বিরোধী দল নিধন চলছে: মির্জা ফখরুল         পদ্মা সেতুতে টোল আদায় হলো যত টাকা         দাম কমলো সয়াবিন তেলের         মডেল হলেন শাবনাজ-নাঈমের দুই মেয়ে         পদ্মা সেতু নিয়ে যা বললেন জায়েদ খান-নিপুণ         দেশে আরো ৩২ ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি