শুক্রবার, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
২৭ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

যেসব লক্ষণে বুঝবেন গর্ভে যমজ সন্তান

উইমেনআই২৪ ডেস্ক: অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার সঙ্গে শরীরে নানা রকম পরিবর্তন আসে। বহু হরমোনের ক্ষরণ শুরু হয়। গর্ভে যমজ সন্তান রয়েছে কি না, তা পাকাপাকি ভাবে জানার একমাত্র উপায় আলট্রাসাউন্ড স্ক্যান। কিন্তু অনেকেই মনে করেন, কিছু লক্ষণ দেখলে আগাম বুঝা যায়, গর্ভে একাধিক ভ্রূণ রয়েছে কি না। সে লক্ষণগুলো কী, জেনে নিন—

ক্লান্তি
অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার অন্যতম লক্ষণ ক্লান্তি। অনেকেই প্রথম মাসে এই ধরনের ক্লান্তি অনুভব করেন। ঘন ঘন প্রস্রাব পাওয়ার রাতের টানা ঘুম হয় না। তাই শরীরও পর্যাপ্ত পরিমাণে বিশ্রাম পায় না। যাঁদের এই ক্লান্তি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হয়, তাঁদের সম্ভাবনা থেকে যায় যমজ সন্তানের। তবে কেউ খুব বেশি ক্লান্ত মানেই যে গর্ভে যমজ সন্তান, এমনটার কোনও নিশ্চয়তা নেই।

বমির প্রবণতা
অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় নানা রকম হরমোনের ক্ষরণ শুরু হয়। তাতেই অনেকের বমি ভাব বা বমির প্রবণতা শুরু হয়। অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার চার সপ্তাহ পর থেকেই এই লক্ষণ দেখা দেয়। অনেক সময়ে ঋতুস্রাব বন্ধ হওয়ার আগেই এমন অসুস্থতা দেখা দিতে পারে। এই সমস্যা দিনের যে কোনও সময়ে হতে পারে। যাঁদের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার ১৪ সপ্তাহ পর্যন্ত এই সমস্যা থেকে যায়, তাঁদের গর্ভে একাধিক ভ্রূণ থাকতে পারে।

দ্বিতীয় হৃদস্পন্দন
৮ থেকে ১০ সপ্তাহের মাথায় সন্তানের হৃদস্পন্দন শোনা যায়। যদি আপনার চিকিৎসক মনে করেন, দ্বিতীয় কোনও হৃদস্পন্দন শোনা যাচ্ছে, তবে তা যমজ সন্তানের ইঙ্গিত হতে পারে। নিশ্চিত হওয়ার জন্য বেশির ভাগ চিকিৎসক আলট্রাসাউন্ড স্ক্যান করতে বলবেন।

উচ্চ এইচসিজি
এইচসিজি বা হিউম্যান কোরিওনিক গোনাডোট্রপিন নামের হরমোনের ক্ষরণ শুরু হয় অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায়। প্রেগন্যান্সি কিটে এই হরমোন ধরা পড়ে প্রস্রাবে। তবে রক্তে কতটা এইচসিজি রয়েছে, তা নির্ধারণ করতে পারে না এই পরীক্ষাগুলো। রক্ত পরীক্ষা করালে অবশ্য তা বোঝা যায়। ২০১৮ সালে করা এক সমীক্ষা বলছে, যাঁদের যমজ সন্তান ছিল গর্ভে, তাঁদের রক্তে এইচসিজি-র পরিমাণে স্বাভাবিকের চেয়ে অনেকটা বেশি ছিল।

ওজন অতিরিক্ত বেড়ে যাওয়া
অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার প্রথম ১২ সপ্তাহ তেমন ওজন বাড়ে না। মোটামুটি ২ কেজি অবধি বাড়তে পারে। তবে যাঁদের যমজ সন্তান হয়েছে, তাঁরা অনেকে জানিয়েছেন, প্রথম ১২ সপ্তাহেই তাঁদের তুলনামূলক ভাবে বেশি ওজন বেড়েছিল।

স্ফীত পেট
মোটামুটি অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার ২০ সপ্তাহ পরই কারও স্ফীত পেট দেখে বোঝা সম্ভব যে তিনি মা হতে চলেছেন। কিন্তু অনেকে যাঁরা যমজ সন্তানধারণ করেছেন, তাঁরা জানিয়েছেন, ২০ সপ্তাহের আগেই নাকি তাঁদের পেট স্ফীত হওয়া শুরু করেছিল। তবে বলে রাখা ভালো, কারও পেট ঠিক কোন সময়ে স্ফীত হবে, তা একেক জনের ক্ষেত্রে আলাদা হতেই পারে।

উইমেনআই২৪ডটকম//জ // ১৩-০৫-২০২২//১০.২৮ পি এম

Mujib Borsho

সর্বশেষ

শীর্ষ সংবাদ:
খাদ্য সঙ্কট নিরসনে পুতিনের প্রস্তাব         দেশে করোনায় মৃত্যু নেই, শনাক্ত ২৩ রোগী         জাপান ও ওইসিডির সহযোগিতা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী         রাজধানীতে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার         শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে দাফন করা হবে গাফফার চৌধুরীর মরদেহ         মাদক মামলায় ক্লিন চিট পেলেন শাহরুখ পুত্র         অবশেষে মুখ খুললেন ‘নিখোঁজ’ নুসরাত         বুকার পুরস্কার জিতলো ভারতীয় উপন্যাস ‘টম্ব অফ স্যান্ড’         সোনার দাম কমেছে         ৪৪তম বিসিএসে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বেশি         কুমিল্লা সিটি প্রার্থীদের ডেকেছে ইসি         পথশিশুকে বিয়ে দিল গান্ধি আশ্রম ট্রাস্ট         ভারতে স্বীকৃতি পেল যৌন পেশা         কচ্ছপ জানালো চ্যাম্পিয়নস লিগ চ্যাম্পিয়নের নাম         শনিবার আসছে গাফ্‌ফার চৌধুরীর মরদেহ         সাবেক প্রতিমন্ত্রী গৌতম চক্রবর্তী মারা গেছেন         কাঁচা বাজারে এ সপ্তাহে কাচাঁ মরিচ ও ধনিয়াপাতাসহ বেগুনে আগুন         ঢাকায় টাইগারদের হারে সিরিজ জিতল লংকানরা         পি কে হালদারের বিচার দুই দেশের আদালতেই : দুদক কমিশনার         উদ্বোধনের আগেই সেতু দিয়ে চললো বিয়ের গাড়ি         পেট্রোল ঢেলে ঘুমন্ত নারীকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ