বৃহস্পতিবার, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
০২ ডিসেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

অর্থ লেনদেনে বিপ্লব ঘটিয়েছে মোবাইল ব্যাংকিং

খাদিজা খানম তাহমিনা : রহিম মিয়া ঠিক বুঝে উঠতে পারছে না, টাকাটা কীভাবে ২০ তারিখের আগে পাঠাবে। স্ত্রী শরীফা খবর পাঠিয়েছে। ছেলের পরীক্ষার ফি, সংসারের খরচের টাকা, মায়ের ওষুধের টাকা পাঠাতে হবে। কিন্তু এখন বাড়ি গেলে কতগুলো টাকা যাতায়াত বাবদ খরচ হয়ে যাবে। তাছাড়া এখন আয় ভালো, এই মুহূর্তে বাড়ি গেলে কত সময় নষ্ট হবে।’ … এতসব চিন্তায় মগ্ন রহিম মিয়া। রিকশার প্যাডেলের দিকে তাকিয়ে পাশে বসে থাকা আরেক রিকশাচালক বন্ধু মহসিন আলীকে তাই বাড়ি যাবার কথাটা বলল। মহসিন আলীই বুদ্ধিটা দিল, বিকাশ কইরা দাও মিয়া,  ১০ মিনিটে টাকা উড়াল দিয়া বাড়ি যাইব গা। কয় কি, ১০ মিনিটে, কেমনে? আসো, বলেই একটা হিসাব খুলে দিল মহসিন  আলী, বলল, এবার ভাবীরে কও একটা ছবি, ভোটার আইডি কার্ড, আর মোবাইল নম্বরটা নিয়া আস-পাশের কোন বিকাশ কেন্দ্রে গিয়া একটা হিসাব খুলতে। এরপর আর তোমার বাড়ি গিয়া টাকা দিয়া আসতে হইবো না। প্রথমে বিষয়টা বিশ্বাস করতে পারেনি রহিম মিয়া। পরে যখন স্ত্রী শরীফার কাছ থেকে খবর আসল, তারা টাকা পেয়েছে। তখন যে স্বস্তির নিঃশ্বাস বের হলো রহিম মিয়ার ভেতর থেকে ‘‘এত্তো সহজ’’। এরপর থেকে রহিম মিয়া মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমেই টাকা পাঠাতে শুরু করে।
হাফিজা গার্মেন্টে চাকরি করে যা বেতন পায় তার সিংহভাগই পাঠিয়ে দেয় তার মায়ের কাছে কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে। সেখানে তার ছেলে, মা এবং ছোট বোন থাকে। সংসারের প্রায়ই খরচ পাঠাতে হয় হাফিজাকে। মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধা সে গ্রহণ করছে প্রায় বছর খানেক ধরে। ‘কখনো কোন সমস্যা কি হয়েছে এভাবে টাকা পাঠাতে গিয়ে?- জানতে চাইলে হাফিজা জানান, একবার কিছুক্ষণ সময় বেশি  লেগেছে টাকা  পৌঁছাতে, এছাড়া এ পর্যন্ত তেমন কোন সমস্যা হয়নি।’
শাহাদাত হোসেন চাকরি করেন একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে। বাড়িতে মা, বাবা, ছোট ভাই এবং বোন থাকেন। প্রতিমাসেই তিনি মোবাইল ব্যাংকিং নগদের মাধ্যমে টাকা পাঠাচ্ছেন বাড়িতে। তিনি জানান, এই প্রযুক্তি সেবা মানুষকে আরো বেশি কর্মক্ষম করতে সহায়তা করেছে। কম খরচ দ্রুত দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে  টাকা পাঠাতে পারায় মানুষকে আর হয়রানির শিকার হতে হয় না।
মোবাইল ব্যাংকিং এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন এর নাম। এই প্রযুক্তি সেবায় প্রতিদিন পাঁচশ’ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হচ্ছে। আর এর গ্রাহক সংখ্যা দুই কোটির বেশি। শুধু টাকা লেনদেনই নয়, অর্থনৈতিক গতি সঞ্চারে বিরাট ভূমিকা রাখছে  মোবাইল ব্যাংকিং। এছাড়াও বিদেশ থেকে টাকা পাঠানো অর্থাৎ রেমিট্যান্স পাঠানোর ক্ষেত্রেও মোবাইল ব্যাংকিং সেবা গ্রহণ করা হচ্ছে।
বাংলাদেশে মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু হয় ২০১০ সালে। বাংলাদেশে মোবাইল ব্যাংকিং এ যত টাকা লেনদেন হয়, তা মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৫ দশমিক ৬ শতাংশ। বিশ্বব্যাপী সাধারণ মানুষকে আর্থিক খাতে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়ে কাজ করছে ‘অ্যালায়েন্স ফর ফাইন্যান্সিয়াল ইনক্লুশন’। এটি বিভিন্ন দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর আন্তর্জাতিক সংগঠন।
টাকা লেনদেনের এখন সবচেয়ে সহজ উপায় হচ্ছে মোবাইল ব্যাংকিং। মোবাইল ব্যাংকিং-এর জনপ্রিয়তা দিনদিন বেড়েই চলছে। বর্তমানে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ইউটিলিটি বিল, ক্যাশ ইন ট্রানজেকশন, ক্যাশ আউট ট্রানজেকশন, রেমিটেন্স ইত্যাদি সেবাও দেয়া হচ্ছে। বিভিন্ন ব্যাংক বিভিন্ন নামে মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এজেন্টদের মাধ্যমে এসব ব্যাংক প্রতিষ্ঠানগুলো মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দিয়ে যাচ্ছে। বিকাশ, নগদ, শিওরক্যাশ, ডাচবাংলা মোবাইল ব্যাংকিং, মোবিক্যাশ ইত্যাদি এখন সব  শ্রেণী পেশার মানুষের মুখে মুখে। তবে সবচেয়ে জনপ্রিয়তার শীর্ষে আছে ‘বিকাশ’। মোবাইল ব্যাংকি এ লেনেদেনের ৭০ শতাংশেরও বেশি লেনদেন হচ্ছে বিকাশের মাধ্যমে। দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে খুব কম সময়ে এবং কম খরচে টাকা পৌঁছে দিচ্ছে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা। তাই মোবাইল ব্যাংকিং সেবার নির্ভরতা বাড়ছে সাধারণ মানুষের। প্রায় ৮০ শতাংশ মানুষ এ মাধ্যমে টাকা লেনদেন করছে বর্তমানে।
মোবাইল ব্যাংকিং এ লেনদেনের কয়েকটি পদ্ধতিতে করা যায়। এজেন্টের কাছে গিয়ে একাউন্ট খুলে টাকা জমা করে নিজের মোবাইল ব্যালেন্স নিয়ে কাউকে পাঠানো-এটি একটি পদ্ধতি। এজেন্টের কাছে গিয়ে সুনির্দিষ্ট  নম্বরে টাকা পাঠানো এবং ব্যাংকে একাউন্ট খুলে সেখানে টাকা জমা রেখে নিজের মোবাইলে ব্যালেন্স নিয়ে লেনদেন। তবে প্রেরক ও প্রাপক দুই পক্ষেরই একাউন্ট বা হিসাব খুলে লেনদেন সবচেয়ে নিরাপদ। এতে টাকা পাঠানোর ক্ষেত্রে ঝুঁকি থাকে না। জীবন যাত্রার মান উন্নয়নে প্রযুক্তির ব্যবহার সত্যিই সুদূরপ্রসারী। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মোবাইল ব্যাংকিং ব্যাপকভাবে আলোড়ন তৈরি করেছে। যার ফলে কোটি কোটি দরিদ্র মানুষকে কম খরচে এবং সহজেই ব্যাংকিং সুবিধা দিচ্ছে।
একটি প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, ঢাকার ৭৬% রিকশাওয়ালা মুঠোফোনে অর্থাৎ মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে টাকা বাড়িতে পাঠান এবং গড়ে প্রতি সপ্তাহে জনপ্রতি তাদের পাঠানো টাকার পরিমাণ প্রায় ১ হাজার টাকা। শুধু তাই নয় দিনদিন এর সংখ্যা বাড়ছে।
রিকশা চালকদের সাথে কথা বলে জানা যায় তাদের অনেকেই এখন কম খরচে বাড়িতে টাকা পাঠাতে পারছেন মুঠোফোনের মাধ্যমে। এর জন্য সময় লাগছে ও খরচ হচ্ছে খুবই কম। ফলে এখন সবাই এই পদ্ধতিতেই বাড়ির আপনজনদের কাছে টাকা পাঠাচ্ছেন। 
আবুল হোসেন। রিকশাচালক। তিনি বলেন, ‘আমি  দোকানে গিয়া (এজেন্টের কাছে) টাকা পাঠাই। হেয় (স্ত্রী), বাড়ির পাশের এজেন্টের দোকানে গিয়া টাকা উঠায়ে নেয়। অনেক সুবিধা। এখন আর মাসে মাসে বাড়ি যাওয়ার লাগে না। খরচ বাঁচে, সময়ও বাচে। ওই সময়টায় আমি বেশি আয় করতে পারি।’
বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়-২০১৩ সালের জানুয়ারি মাসে দেশে মোবাইল ব্যাংকের গ্রাহক সংখ্যা ছিলেন ৫৯ হাজার ৫৫৯ জন। ২০১৩ সালের এপ্রিলে এর গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়ায় ৫০ লাখ। সে বছরের নভেম্বরে গ্রাহক সংখ্যা ১ কোটি ছাড়িয়ে যায়। ডিসেম্বরের শেষে এর সংখ্যা দাঁড়ায় ১ কোটি ৩১ লাখ ৮০ হাজার।
এদিকে ২০১৪ সালে এপ্রিলে এর গ্রাহক সংখ্যা দেড় কোটি ছাড়িয়েছে। আর আগস্ট পর্যন্ত ১ কোটি ৯২ লাখ ৯১টি হিসাব খোলা হয়েছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের। প্রতি মাসেই এর গ্রাহক সংখ্যা বাড়ছে। মাত্র ১০ টাকায় ব্যাংক একাউন্ট খোলার সুযোগ পাচ্ছেন গ্রামের গরিব কৃষক। মোবাইল ব্যাংকিং এর কল্যাণে দেশে কর্মসংস্থান ও তৈরি হচ্ছে। এখন বেকার অনেক তরুণ মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানের এজেন্ট হয়ে নিজেদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে নিচ্ছে। ব্র্যাক ব্যাংক বিকাশ, ডাচ-বাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং, ইউসিবির ইউক্যাশ, গ্রামীণফোনের মোবিক্যাশ এই চারটি কোম্পানির এজেন্ট হওয়ার সুযোগ দিচ্ছে। ইতিমধ্য যুক্ত হয়েছে নগদ ও উপায়।এজেন্টদের কাজ হচ্ছে প্রেরকের টাকা জমা নেয়া এবং সেই টাকা প্রাপককে দেয়া। এজেন্ট হয়ে একজন আয় করতে পারেন প্রায় ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা।
এবিষয়ে কথা বলছিলাম কয়েকজন এজেন্টের সাথে- এজেন্ট-১ মোহাম্মদ মাহবুব। সিফাত স্টেশনারি। এলিফেন্ট রোড। ঢাকা। স্টেশনারির পাশাপাশি মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলোর এজেন্ট হিসেবেও কাজ করছেন। তিনি জানান, নিয়ম হচ্ছে একজন ব্যক্তি একসঙ্গে ২৫ হাজার টাকার বেশি লেনদেন করতে পারেন না। প্রতি লেনদেনে ৪.২০ টাকা একজন এজেন্টের  লাভ হয়। প্রতিদিন ৫০০ টাকার মতো আয় হয় আমার। কোন কোন দিন তা ১০০০ হাজার টাকাও ছাড়িয়ে যায়।’
এজেন্ট-২ সোহেল মিজান। মিজান টেলিকম। মিরপুর, ঢাকা। তিনি জানান, আমি মাত্র ৩০ হাজার টাকা নিয়ে এই ব্যবসা শুরু করেছি। দোকান ভাড়া এবং ডেকোরেশন বাবদ ৩০ হাজার টাকা। মোট ৬০ হাজার টাকা। তবে লাভ হচ্ছে ভালো। প্রতিদিন ৭০০-৮০০ টাকা আয় হয়।
মুঠোফোনেই রেমিটেন্স : সরাসরি মুঠোফোনে রেমিটেন্স  পাঠানোর জন্য মাস্টার কার্ড, ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন ও বিকাশ যৌথভাবে মুঠোফোনে প্রবাসী আয় বা মানি ট্রান্সফার সেবা চালু করেছে। পুরো প্রক্রিয়ায় প্রেরককে ওয়েস্টার্ন ইউনিয়নের নির্ধারিত ফি জমা দিতে হবে। তবে প্রাপককে কোনো অর্থ খরচ করতে হবে না। দিনরাত ২৪ ঘণ্টা এর মাধ্যমে টাকা পাঠানো কিংবা তোলার সুযোগও রাখা হয়েছে।

প্রায় ১৩ কোটি মানুষ বাংলাদেশে মোবাইল ফোন ব্যবহার করে। এর মধ্যে আড়াই কোটির বেশি মানুষের বিকাশ অ্যাকাউন্ট রয়েছে। আর দেশজুড়ে বিকাশের এজেন্ট আছে লাখ লাখ। সবাই এখন বলে ‘আমাকে বিকাশ করো। কেউ বলে না- আমার কাছে টাকা পাঠাও। 
মোবাইল ব্যাংকিংয়ে কোন প্রকার প্রতারণার শিকার হওয়ার সম্ভাবনা আছে কিনা জানতে চাইলে  বনশ্রীর মর্ডান টেলিকমের কর্ণধার ফারুক হোসেন জানান, ‘লেনদেনে অনেক সময় নম্বর ভুল হতে পারে। এক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হয় গ্রাহক এবং এজেন্টদের। ’ ব্যালেন্স চেক করে লেনদেন করার কথাও বলেন তিনি। ‘অনেক সময় প্রতারণা হয়, মিথ্যা পরিচয়ে টাকা ট্রানজেকশন করতে বলে কোন দুষ্টচক্র। মোবাইলের পুরনো কোন রেকর্ড দিয়ে জালিয়াতির ঘটনাও অস্বাভাবিক নয়।’
প্রতারণার ঘটনাও ঘটেছে : অর্থ আদান-প্রদানের মাধ্যম বিকাশে ফাঁদ পেতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীর কাছ থেকে ৩৬ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র। এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে। বাংলাদেশে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রসারের বিপুল সম্ভবনা রয়েছে বলে মনে করেন খাতটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। পাশাপাশি মোবাইল ব্যাংকিংয়ের নিরাপত্তার দিকটিও বেশ গুরুত্বের সঙ্গে দেখছেন তারা। কারণ সাম্প্রতিক সময়ে তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহারের যে অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটেছে, তা যেন মোবাইল ব্যাংকিং এর ক্ষেত্রে না ঘটে, সে জন্য নিরাপত্তা বাড়ানোর বিষয়টিতে গুরুত্ব দিতে হবে।

  

 

Mujib Borsho

সর্বশেষ

শীর্ষ সংবাদ:
এইচএসসি পরীক্ষা বৃহস্পতিবার শুরু, মানতে হবে ১৬ নির্দেশনা         জনগণকে ‘কম খাওয়ার’ নির্দেশ দিলেন কিম জং উন         দেশে ফিরেছে নারী দল         বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন চুক্তিতে নতুন অধ্যায়ে দেশ         সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মোজাম্মেল হোসেন         উড়োজাহাজের ধাক্কায় ২ গরুর মৃত্যু, ৪ আনসার প্রত্যাহার         আরো ১২১ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে         গ্রেপ্তার ভয়ে পুরুষশূন্য গ্রাম, আতঙ্কে নারী-শিশু         বৈশ্বিক কোভিড সহনশীলতা সূচকে ১৮ ধাপ উন্নতি বাংলাদেশের         এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে ডিএমপির যেসব নিষেধাজ্ঞা         নভেম্বরে ৩২৬ নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতন শিকার         নেত্রকোণায় দাদন ব্যবসায়ীর হয়রানির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন         ‘ঠিকানাহীন’ শোভা এখন বুয়েটে         ঢাকায় বাংলাদেশ ও পাকিস্তান দল         শিক্ষা-গবেষণা ও ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার আহ্বান         ২৪ ঘণ্টায় ২৮২ জন শনাক্ত         নবাবগঞ্জে বিশ্ব এইডস দিবস পালন         সৌদি আরবে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন শনাক্ত         শিক্ষার্থী নাঈমের নামে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণের ঘোষণা         শ্লীলতাহানির মামলায় নারাজির আবেদন পরীমনির