রবিবার, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
২৮ নভেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

পাহাড় জঙ্গলে ঘেরা মেঘের মুলুক ধোত্রে

উইমেনআই২৪ প্রতিবেদক: পাহাড়, জঙ্গল, মেঘ, বৃষ্টি, নির্জনতা যেন জড়াজড়ি করে রয়েছে এই গ্রামে। পাহাড়ি পথে হাঁটতে হাঁটতে চোখে পড়ে শুধু হাসিমাখা মুখ। যেন পৃথিবীর সব সুখের ঠিকানা এই গ্রাম। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরা পাহাড়ের এই ছোট্ট গ্রাম এক কথায় মেঘের মুলুক। গ্রামের নাম ধোত্রে। 

পাহাড় জঙ্গলে ঘেরা মেঘের মুলুক ধোত্রে

দার্জিলিং জেলার অন্তর্গত সিঙ্গলিলা জাতীয় উদ্যানের মধ্যেই এই গ্রাম। গ্রামের নানা দিক থেকে যেদিকেই চোখ যায় সেদিকেই চোখে পড়ে সবুজ। শুধুমাত্র গগনচুম্বী পাইনের ঘন জঙ্গলের জন্যই নয়, পাহাড়ের খাঁজে খাঁজে সাজানো প্রতিটি বাড়ির চাল সবুজ রঙের টিন দিয়ে ঢাকা, যার জন্য এই গ্রামের আরেক নাম ‘গ্রিন ভিলেজ’। সমুদ্রতল থেকে সাড়ে আট হাজার ফুট উচ্চতায় পাহাড়ি সবুজ গ্রাম ধোত্রে। 

প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরা ছোট্ট এই গ্রামের বাসিন্দা সাকুল্যে ৫০ টি পরিবার। সব বাড়ির সামনে একচিলতে জমিতে গাজর, বিন, মটরশুঁটি, আলু আর কপির চাষ হয়। পাইনগাছের ঘন বনে রয়েছে পাখির কলতান। রয়েছে ভাল্লুক, রেড পান্ডার আনাগোনা। রয়েছে অপরিসীম নির্জনতা আর সঙ্গে রয়েছে তুষারাবৃত কাঞ্চনজঙ্ঘা। দিনের বিভিন্ন সময়ে নানা রঙে আবির্ভূত হন তিনি। রঙের খেলায় মনে হবে স্বয়ং বুদ্ধদেব আপনার সামনে শুয়ে রয়েছেন। তবে শুধু গ্রীষ্মে বা শরতে নয় ভরা শীতে ধোত্রেতে তুষারপাতের অভিজ্ঞতাও আপনাকে মুগ্ধ করবে। 

এখানকার স্থানীয় মানুষদের মুখে সবসময় লেগে রয়েছে সরল হাসি। স্থানীয় হোমস্টের বাসিন্দাদের নির্ভেজাল আতিথেয়তা এখানে বারবার যেতে বাধ্য করবে আপনাকে। ধোত্রে গেলে সূর্যোদয়ের আগেই উঠে পড়ুন ঘুম থেকে। হোমস্টের ছাদে চলে যান, বা একটু হেঁটে চলে যান দূরে অবস্থিত ভিউ পয়েন্টয়ে। এছাড়া গ্রামের মধ্যেও একটু হাঁটাহাঁটি করে নিতে পারেন। গল্প করার জন্য পেয়ে যাবেন স্থানীয় বাসিন্দাদের। তাঁদের ঝুলিতে গ্রাম নিয়ে রয়েছে হাজারও গল্প। কাছে মনাস্ট্রি থেকে ভেসে আসা ‘ওম মণি পদ্মে হুঁম’ বা মন্দিরের মঙ্গলারতির ঘণ্টাধ্বনি মন ভরিয়ে দেয় সময়ে সময়ে। 

সান্দাকফুর ট্রেকিং অনেকে এই ধোত্রে থেকেই শুরু করেন। আর যাঁরা শুধুমাত্র ধোত্রেকেই উপভোগ করতে চান, তাঁরা এখান থেকে ট্রেক করে টুমলিং পর্যন্ত ঘুরে আসতে পারেন। 

কীভাবে যাবেন? 
কলকাতা হোক বা দেশের যে কোনো প্রান্ত থেকে আপনাকে নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন বা বাগডোগরা বিমানবন্দরে পৌঁছতে হবে। বিমানবন্দর বা নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন থেকে ধোত্রে যাবার গাড়ি পেয়ে যাবেন। আর যদি আপনার হোম স্টেকে আগে থেকে জানিয়ে রাখেন, তা হলেও তাঁরাও গাড়ির ব্যবস্থা করে দেন। এনজেপি বা বাগডোগরা থেকে ধোত্রের দূরত্ব ১০০ কিমির আশেপাশে। এন.জে.পি - শিলিগুড়ি থেকে হোমস্টে পর্যন্ত একটি গাড়ি ভাড়া (আনুমানিক) ৫০০০/-টাকা। 

থাকা খাওয়ার খরচ
এখানে কোনও হোটেল নেই। কয়েকটা হোমস্টে রয়েছে। হোমস্টেতে রোজের জনপ্রতি খরচ ১৫০০/-টাকা। তবে এটা শুধু থাকার জন্য নয়। এরই মধ্যে অন্তর্ভুক্ত সকালের চা, প্রাতঃরাশ, মধ্যাহ্নভোজ, সন্ধের টিফিন ও নৈশভোজ।

 

উইমেনআই২৪//এলআরবি//

 

Mujib Borsho

সর্বশেষ

শীর্ষ সংবাদ:
খালেদা জিয়া লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত: চিকিৎসক         ফের মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক হচ্ছে ইংল্যান্ডে         রায় ঘোষণা না হওয়ায় যা বললেন আবরারের মা         বিএনপি’র ফন্দি-ফিকির আমরা বুঝি: তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী         নাচলেন ও গাইলেন প্রতিমন্ত্রী মুরাদ         প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপের আহ্বান, আবেদন শেষ ৩০ নভেম্বর         লক্ষ্মীপুরে নির্বাচনী সহিংসতায় ছাত্রলীগ নেতা নিহত         বিএনপি বিভ্রান্তি সৃষ্টির রাজনীতিতে বিশ্বাসী: ওবায়দুল কাদের         সেই অবরোধ বিএনপি এখনো প্রত্যাহার করেনি: প্রধানমন্ত্রী         কয়েকটি দেশের যাত্রী প্রবেশে নিষেধাজ্ঞার সুপারিশ         ওমিক্রনের সংক্রমণ এড়াতে কারিগরি কমিটির চার সুপারিশ         ২৪ ঘন্টায় ৭৪ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি রোগী         ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও ৩ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২০৫         দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডে নতুন চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ         অভিনয় শিল্পী সংঘের সাধারণ সভা ২০২১ অনুষ্ঠিত         অল্প বয়সেই হাড়ের জোড়ায় ব্যাথার কারণ         কুয়েতে মানবপাচার মামলায় পাপুলের ৭ বছর কারাদণ্ড         ৮৩ রানে এগিয়ে থেকে তৃতীয় দিন শেষ করল বাংলাদেশ         নবাবগঞ্জে জাল ভোট দেওয়ার সময় কিশোর আটক         আগামী মঙ্গলবার সু চির বিরুদ্ধে মামলার প্রথম রায়         তেলাঙ্গানার নারীরা বউ পেটানোর পক্ষে