মঙ্গলবার, ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯
১৭ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

মানুষ হিসেবে নিজের সম্পূর্ণ অধিকার চাই-আজ়মেরি হক বাঁধন

উইমেনআই২৪ ডেস্ক: ঢাকাই শাড়ি পরে ফ্রেঞ্চ রিভিয়েরায় বাংলাদেশের আজ়মেরি হক বাঁধনের ছবি সকলেই দেখেছেন। শুনেছেন কান চলচ্চিত্র উৎসবে তাঁর ছবি ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ দেখে অতিথিরা উঠে দাঁড়িয়ে করতালি দিয়ে অভিবাদন জানিয়েছেন। কিন্তু তার পিছনে যে এক নিরস্ত্র সংগ্রাম রয়েছে অনেকেই জানেন না। তিনি বিবাহ বিচ্ছিন্না, সিঙ্গল মাদার, প্রাক্তন স্বামীর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে মেয়ের অভিভাবকত্বের জন্য লড়েছেন। অনেক প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও বাঁধনকে আটকানো সম্ভব হয়নি। বাঁধন রক্ষণশীল সমাজে নারীমুক্তি, তথা সমস্ত মানুষের স্বাধীনভাবে বাঁচার স্বপ্নকেই জাগিয়ে তুলেছেন। অনেকেই তাঁর ফেসবুক লাইভ দেখেছেন, যেখানে ফ্রান্সেও তিনি প্রতিদিন শরীরচর্চা করছেন, আবেগে ভেসে গিয়েও নিজেকে হারাচ্ছেন না। কী তার পিছনের কারণ, শুনে নিই বাঁধনের মুখ থেকেই। 

মানুষ হিসেবে নিজের সম্পূর্ণ অধিকার চাই-আজ়মেরি হক বাঁধন

আপনার ছবি কান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে দেখানো হবে জানার পর প্রথম রিঅ্যাকশন কী ছিল? 
আনন্দ করার মতো অবস্থায় তখন ছিলাম না। কারণ আমার একটা ডিপ্রেশনের হিসট্রি আছে। তখন একটা অ্যাটাক হয়েছিল। ওষুধ খেয়ে, থেরাপিস্টের সাহায্যে সামাল দিচ্ছিলাম। হয়তো আপনি ভাবছেন, এত আনন্দের খবরে ডিপ্রেসড থাকার কী আছে। কিন্তু ডিপ্রেশন তো একটা রোগ, তাকে আমি চাইলেই তো বশ করতে পারব না।

নিজেকে সবসময় ফিট রাখেন। ফ্রান্সে গিয়েও শরীরচর্চা করেছেন...
করি তো। শুধু ফিট থাকার জন্য নয়। আমি নিজেকে বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত রাখি, নতুন জিনিস শিখি, মেয়ের সঙ্গে সময় কাটাই... তাও তো যখন অ্যাটাক হওয়ার, হবেই।

এই যে আপনি এত ফিটনেস সচেতন, এটার মোটিভেশন পান কী করে? সকলে তো আপনার সৌন্দর্য বা ফিটনেসটা দেখেন। কিন্তু এর পিছনে অনেক পরিশ্রমও আছে নিশ্চয়ই? 
আমার যখন ডিপ্রেসিভ স্টেট চলে দিনের পর দিন বিছানা থেকে উঠতে পারি না। কিন্তু তারপর আবার নিজেকে দাঁড় করাই। আসলে, আমার কাছে সবচেয়ে বড় মোটিভেশন বা ভয় হল, আমি যদি অসুস্থ হই আমাকে দেখার কেউ নেই। আমার মেয়েকেই বা কে দেখবে ! আজ দশবছর হল, আমি কখনও গুরুতর অসুস্থতার সম্মুখীন হইনি। অনেক ভেবেছি, কেন হইনি? কেন কখনও ভীষণভাবে অসুস্থ হইনি? অনেক ভেবেছি জানেন এটা নিয়ে। মেয়ে জন্মানোর পর থেকে আরও বেশি করে এই ভয়টা কাজ করেছে বলে হয়তো অসুস্থ হইনি। আমি মা-বাবার বাড়িতে থাকি, ফলে আমার মেয়ে একটা পারিবারিক পরিবেশ পায়। তা বাদে আমাদের তো আর কেউ নেই। ফলে নিজেতে ফিট রাখা, ওয়র্কআউট করাটা আসলে বেঁচে থাকার লড়াই বলতে পারেন। 

আপনার স্বপ্ন কী? 
আসলে আমি স্বপ্ন দেখতে পারি না। ছোটবেলা থেকে আমি যে স্বপ্নগুলো দেখেছি, তার কোনওটাই আমার ছিল না। আমার পরিবার, আমাদের সমাজ আমাকে সেই স্বপ্নগুলো দেখতে বাধ্য করেছে। ফলে স্বাধীনভাবে স্বপ্ন দেখার অভ্যেসই কখনও তৈরি হয়নি আমার। নতুন করে এই অভ্যেসটা তৈরি করা যায় না। তবে একটা জিনিস আমি মানুষ হতে চাই। মানুষ হিসেবে নিজের সম্পূর্ণ অধিকার চাই। সমাজের তথাকথিত আদর্শ নারী হয়ে থাকতে চাই না। ওভাবে মরতে চাই না। 

সাক্ষাৎকারের শেষ বাঁধন বললেন, ‘‘আসলে সকলেই আমার গ্ল্যামার, সাজসজ্জা, সাফল্যটা দেখে। তার পিছনের ব্যর্থতা বা লড়াইগুলো জানে না। কিন্তু ব্যর্থতা না থাকলে আজকের সাফল্যটা হয়তো হত না...’’ ঠিকই। 

 

উইমেনআই২৪//এলআরবি//

Mujib Borsho

সর্বশেষ

শীর্ষ সংবাদ:
টাঙ্গাইলে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত         পদ্মাসেতুর টোল নির্ধারণ, প্রজ্ঞাপন জারি         সমুদ্র স্নানে মমর বাঁধ ভাঙা উচ্ছ্বাস         শেয়ারবাজারে সূচকের পতন         নারায়ণগঞ্জে মাদক মামলায় দুইজনের যাবজ্জীবন         ঢাকায় বেড়েছে ডেঙ্গুর প্রভাব         উত্তরা মটরসে চাকরির সুযোগ         সিদ্ধান্ত পাল্টালেন ববিতা         পরিবেশবান্ধব নতুন ল্যাপটপ উন্মোচন করলো এসার         সবাইকে সাশ্রয়ী হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর         দুই মডেলের সিপিইউ লিকুইড কুলার বাজারে আনলো ওয়ালটন         মির্জা আব্বাস হাসপাতালে         সুস্বাদু চা বানানোর কৌশল         ৮ পদের ওষুধের নিবন্ধন বাতিল         ২ লাখ ৪৬ হাজার কোটি টাকার এডিপি অনুমোদন         অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় যে সিদ্ধান্ত নিল শ্রীলঙ্কা         শারীরিক সম্পর্ক উপভোগের বয়স বৈচিত্র্য!         কিউবা নীতিতে বদল আনল যুক্তরাষ্ট্র         শেখ হাসিনা বাংলাদেশের জন্য আশির্বাদ: এনামুল হক শামীম