রবিবার, ২ কার্তিক ১৪২৮
১৭ অক্টোবর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

‘ক্ষুধামুক্ত বাংলাদেশ গড়তে কৃষিকে প্রাধান্য দিতে হবে’

উইমেনআই২৪ প্রতিবেদক: সিপিডির চেয়ারম্যান রেহমান সোবহান বলেছেন, ‘কোনো পাকিস্তানি মেজরের বঙ্গবন্ধুর নামে স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ কোনো বিষয় নয়। কোনো জাতির দেশ বা রাষ্ট্র ঘোষণা দিয়ে শুরু হয় না। এটা একটি প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে হয়। হাজারটা দেশ আছে যেখানে স্বাধীনতার ঘোষণা দেওয়া হয়নি। কারণ যে কেউ দাবি করতে পারে, এ ভূখণ্ড তার দেশ। তা বললেই তো হবে না। ঐতিহাসিক ধারাবাহিকতা থাকতে হবে, গ্রহণযোগ্যতা থাকতে হবে। স্বাধীনতার ঘোষণা নিয়ে কোনো বিতর্ক আমি সিরিয়াসলি নেই না।’

বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জুম এবং ফেসবুক লাইভ-এর মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী সম্প্রচারিত ৭-৮ অক্টোবর ২০২১ ‘পঞ্চাশে বাংলাদেশ : অনিশ্চিত যাত্রা থেকে উন্নয়নের রোল মডেল’ শীর্ষক দুদিনব্যাপী ভার্চুয়াল সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

দুই দিনব্যাপী এই আয়োজনের শুরু হয় বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় সকাল ৯:৫০ মিনিটে। এতে সূচনা বক্তব্য রাখেন অনারারী সহযোগী প্রফেসর মো. আলাউদ্দিন, প্রফেসর শামস্ রহমান ও প্রফেসর তপন সাহা। এরপর মূল বিষয়ের উপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রফেসর রেহমান সোবহান। বাংলাদেশ-এর কৃষি স্বনির্ভরতা থেকে রপ্তানিমুখিতা বিষয়ে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম।

বাংলাদেশ-এর শিক্ষা: ২০৪১ রূপকল্পের প্রেক্ষিত মানবসম্পদ বিনির্মাণ নিয়ে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর মুহাম্মদ জাফর ইকবাল, বাংলাদেশ-এর স্বাস্থ্য সেবা: আত্মনির্ভরতা থেকে স্বাস্থ্য পর্যটন প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রফেসর মোহাম্মদ শহীদউল্লাহ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় এবং বাংলাদেশের জ্বালানী উৎপাদন: উন্নয়ন ও পরিবেশ বিষয়ক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানী বিদ্যুৎ ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী ।

রেহমান সোবহান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত্যার পর দেশে মানসিক এবং রাজনৈতিক অনেক রকম পরিবর্তন দেখা গিয়েছিল। দেশি-বিদেশি রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক কারণে এটা ঘটেছিল। ফলে বাংলাদেশের অবস্থান কিছুটা পরিবর্তিত হয়। তবে ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার দেশে প্রত্যাবর্তনের পরে বাংলাদেশ আবার বঙ্গবন্ধুর ভিশন বাস্তবায়ন কার্যকরে সক্রিয় হয়।’

‘উর্দু পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা ঘোষণার পর বাঙালি তার আত্মপরিচয় খুঁজে নিতে উদ্বুদ্ধ হয়। বঙ্গবন্ধু এ প্রক্রিয়ায় সক্রিয়ভাবে অংশ নেন। এরই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ৬৬ সালে ৬ দফা প্রণয়ন করে। ১৯৭০ এর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সম্পূর্ণ মেজরিটি পায়। বাঙালি জাতি এর মাধ্যমে ৬ দফার প্রতি পূর্ণ সমর্থন জানিয়ে দেয়। ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার মাধ্যমে বাংলাদেশ একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।

সেমিনারে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন ছিল, ক্ষুধামুক্ত বাংলাদেশ গড়তে হলে কৃষিকে প্রাধান্য দিতে হবে। বর্তমানে সে ভিশন বাস্তবায়নের কাজ চলছে। ফলে বাংলাদেশ তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে উপচে পড়া ঝুড়ির দেশে পরিণত হয়েছে। মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে দ্বিতীয়। ধান উৎপাদনে আমরা তৃতীয়। ড্রাগন, স্ট্রবেরি, খেজুর, আপেলের মতো অপ্রচলিত ফলও এখন দেশে ‍উৎপাদন হচ্ছে। বাণিজ্যিক কৃষিতে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা ‘গোলা ভরা ধান, পুকুর ভরা মাছ’ পরিচয় আবার ফিরে পেয়েছি। বন্যা, খরা মোকাবেলা করে দেশ এখন উদ্বৃত্ত খাদ্যের দেশ। সবজি উৎপাদন হচ্ছে ব্যাপকভাবে। কৃষির উপর নির্ভরশীল শিল্প গড়ে উঠেছে। জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা করতে কৃষিতে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার হচ্ছে। এখন সময় এসেছে কৃষিকে বহুমুখি এবং বৈচিত্র্যময় করার। সরকার কৃষিতে সবধরনের সহায়তা চালু রেখেছে।  

মুহাম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, ‘বিশ্বদ্যিালয়গুলো শিক্ষা দিচ্ছে কিন্তু কোনো গবেষণা করছে না। জ্ঞান তৈরিতে সহায়তা করছে না। ভোকেশনার শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। ভোকেশনাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আরও বাড়াতে হবে। ভোকেশনার পড়া শিক্ষার্থীদের সামাজিক মর্যাদা উচ্চ করার ব্যবস্থা নিতে হবে। কারণ আমাদের এখন প্রয়োজন দক্ষ মানবসম্পদ। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা মুখস্ত করাকে অগ্রধিকার দেয়া হচ্ছে। নম্বর বা জিপিএ প্রাধান্য পাচ্ছে, জ্ঞান নয়। দেশের অর্থনীতি এখন তিন চাকায় চলছে। কৃষি, গার্মেন্ট এবং অদক্ষ মানবসম্পদ হলো এ তিন চাকা। চতুর্থ চাকা হতে পারে জ্ঞান।’

তিনি আরও বলেন, ‘কারণ সামনে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব আসছে। আমাদের এখন প্রয়োজন দক্ষ মানবসম্পদ। সেখানে প্রয়োজন হবে আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স, রোবোটিক্স, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং, কোয়ান্টাম কম্পিউটিং এবং ক্লাউড কম্পিউটিং। দক্ষ জনশক্তি না থাকলে আমরা এসব ক্ষেত্রে পিছিয়ে থাকব। আমাদের এখন যা করতে হবে তা হলো মেধা যেন বাইরে চলে না যায় তা দেখা। নিয়মতান্ত্রিক শিক্ষা দিতে হবে। এছাড়া প্রযুক্তি কেনা নয়, প্রযুক্তি তৈরি করতে হবে।’

সেমিনারে অধ্যাপক মুহাম্মদ জাফর ইকবাল ‘বাংলাদেশের শিক্ষা: ২০৪১ রূপকল্পের প্রেক্ষিত, মানবসম্পদ বিনির্মাণ’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করে এসব কথা বলেন।

সেমিনারে প্রধানমন্ত্রী’র জ্বালানি, বিদ্যুৎ ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী বীর বিক্রম বলেন, ‘বাংলাদেশ প্রায় ২৫ বিলিয়ন ডলার বিগত ১২ বছরে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বিনিয়োগ করেছে। প্রাথমিক জ্বালানি বিশেষ করে গ্যাস যোগানে সংকট থাকলে এলএনজি আমদানী করা হচ্ছে ঘাটতি মেটানোর জন্য। অনুসন্ধান কাজ অব্যাহত আছে। বিদ্যুৎ উৎপাদন এখন ২৫ হাজার মেগাওয়টের বেশি। সঞ্চালন ও বিতরণে যে সংকট আছে তা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য বিনিয়োগ করা হচ্ছে। জ্বালানির দক্ষ ব্যবহার এবং নবায়নযোগ্য জ্বালানির বিকাশ নিয়ে পরিকল্পিতভাবে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। জমি স্বল্পতার বিচেনায় নেটমিটারিং এর আওতায় শিল্পের ছাদে সোলার স্থাপনের যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে তাতে সাফল্য আসতে শুরু করেছে। কিন্তু আজকের বিশাল জ্বালানি খাত আরো দক্ষভাবে চালিয়ে নেওয়ার জন্য আমাদের প্রয়োজন দক্ষ জনশক্তি। দেশে যেমন দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতে হবে তেমনি দেশের বাইরে থাকা দক্ষ ও মেধাবি বাংলাদেশি ব্যক্তিদের কিভাবে কাজে লাগান যায় তার পরিকল্পনা করা দরকার। এজন্য সরকার উদ্যোগ নিয়েছে। এছাড়া ধীরে ধীরে ফসিল ফুয়েল নির্ভরতা কাটিয়ে বিকল্প জ্বালানি ব্যবহার করা যায় তা নিয়েও কাজ হচ্ছে।’

অনলাইনে অনুষ্ঠিত এই কনফারেন্সের আয়োজন করে অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড ইউনিভার্সিটি, আরএমআইটি ইউনিভার্সিটি, কুইন্সল্যান্ড ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি, গ্রিফিথ ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অফ সাউদার্ন কুইন্সল্যান্ড, ম্যাকুয়ারি ইউনিভার্সিটি, সুগার রিসার্চ অস্ট্রেলিয়া, কুইন্সল্যান্ড হেলথের সিনিয়র শিক্ষক ও গবেষকরা এবং অস্ট্রেলিয়ার সামাজিক সংগঠন ‘আমরা ক’জন-দি লিগ্যাসি অফ বঙ্গবন্ধু অস্ট্রেলিয়া ইনক।

Mujib Borsho

সর্বশেষ

শীর্ষ সংবাদ:
বিএনপির বক্তব্যই প্রমাণ করে কুমিল্লার ঘটনায় তাদের ইন্ধন রয়েছে: তথ্যমন্ত্রী         অভিশাপ আর কেলেঙ্কারিতে জর্জরিত যে মুক্তা         ওমরাহ যাত্রীদের জন্য নতুন যেসব নির্দেশনা         রাজধানীতে অজ্ঞাত এক নারীর মরদেহ উদ্ধার         ১০ কোটি বছর আগের মাছ ধরা পড়ল বড়শিতে!         আইরিশ লেখিকার বইয়ে ইসরাইলি বর্বরতার কাহিনী         পণ্য ব্যবহার নিশ্চিত করতে ত্রিপক্ষীয় আস্থা সৃষ্টি জরুরি         আমদানির চাল আনতে হবে ৩০ অক্টোবরের মধ্যেই         নারীপক্ষ’র বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন         দক্ষতা উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রশিক্ষণার্থীদের সনদ বিতরণ         আইনের ফাঁক বাড়াচ্ছে বাল্যবিয়ে!         সরকার নিরাপদ স্যানিটেশন নিশ্চিত করতে বদ্ধপরিকর: প্রধানমন্ত্রী         যুবলীগ কেন্দ্রীয় সদস্য গোলাম শাহরিয়ার রঞ্জুর সাথে যুক্তরাজ্য যুবলীগের মতবিনিময়         আ.লীগ সরকারের একজন প্রতিমন্ত্রী সংবিধান সংরক্ষণের শপথ ভঙ্গ করেছেনঃ জি এম কাদের         ইভ্যালির ওয়েবসাইট-অ্যাপ বন্ধ         ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৮৩ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি         সাম্প্রদায়িক অপশক্তি পরিকল্পিতভাবে মন্দিরে হামলা চালিয়েছে: ওবায়দুল কাদের         ত্রিশালে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বেড়ে ৭         মার্কিন প্রশাসনের নজরদারিতে ফেসবুক         হাতে কোরআন শরীফ লিখলেন জারিন         ৭ মাসে অ্যাক্টিভ রোগীর সংখ্যা সর্বনিম্ন , ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত ১৬৬