মঙ্গলবার, ১২ আশ্বিন ১৪২৮
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

বাংলাদেশের মেয়ে জিনাত জাহান আমেরিকার কোর্টের অ্যাটর্নি

উইমেনআই২৪ডেস্ক: জিনাত জাহান। আমেরিকার নিউইয়র্ক কোর্টের অ্যাটর্নি। বাবা বিচারপতি খিজির আহমেদ চৌধুরী বাংলাদেশের সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি। জিনাতের  শৈশব-কৈশোর কেটেছে সিলেটে। সিলেটের আনন্দ নিকেতন স্কুল থেকে ও- লেভেল পাস করে ঢাকা চলে আসেন। ব্যারিস্টারি পড়ার উদ্দেশ্য নিয়ে ইউনিভার্সিটি অব লন্ডনের অধীনে আইনে ভর্তি হন। সেখান থেকে  গ্রাজুয়েশন শেষ করে পাড়ি জমান লন্ডনে। ইংল্যান্ডের নর্দামব্রিয়া ইউনিভার্সিটি থেকে বিপিটিসি কোর্স করে লিংকন ইন থেকে ব্যারিস্টারি ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপর জিনাতের জীবনের বাঁক বদলে যায়। ২০১৬ সালে চলে যান স্বপ্নের দেশ আমেরিকায়।  নিউইয়র্কের ব্রুকলিন  স্কুল অব ল’ থেকে আইনে  মাস্টার্স ডিগ্রি নিয়ে বার পরীক্ষায় অংশ নেন। বার পরীক্ষায় কৃতিত্বের সঙ্গে পাস করে অ্যাটর্নি পদবী লাভ করেন। এখন নিউইয়র্কের কোর্টে আইনপেশা পরিচালনা করে যাচ্ছেন বিচারপতি বাবাকে দেখে ছোট বেলা থেকে কালো কোর্টের প্রতি আকৃষ্ট জিনাত জাহান।

জিনাত জাহানের জন্ম সিলেটে। বাবা খিজির আহমেদ চৌধুরী। তিনি সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি। মা সুগৃহিনী। শৈশব-কৈশোর সিলেটেই কেটেছে। সিলেটের আনন্দ নিকেতন স্কুল থেকে ২০১০ সালে ও-লেভেল  পাস করি। এটা সিলেটের ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের সবচেয়ে নামকরা। ২০১১ সালে ঢাকায় এসে এ- লেভেল শেষ করি।  এরপর ইউনিভার্সিটি অব লন্ডনের অধীনে লন্ডন কলেজ অব লিগ্যাল স্টাডিজে (এলসিএলএস) আইনে অনার্স ভর্তি হই। এলসিএলএস থেকে এলএলবি গ্রাজুয়েশন করি। তারপর ব্যারিস্টারি পড়তে ইংল্যান্ডে চলে যাই। নর্দাম্মিয়া ইউনিভার্সিটি থেকে বিপিটিসি (বার ভোকেশনাল ট্রেনিং কোর্স) শেষ করি। ২০১৬ সালে লিংকন ইন থেকে কল টু দ্যা বার নেই। ওই বছরই আমেরিকায় চলে যাই। ২০১৮ সালে আমেরিকায়  আইনে  মাস্টার্স শেষ করি।  আমরা দুই  বোন। বড় বোন ডাক্তার। উনিও আমেরিকায় আছেন। বোনের নাম রওনক জাহান।

আইন পড়ার আগ্রহের বিষয়ে জিনাত জাহান বলেন, আমরা তখন সিলেটে। বাবা সিলেট বারের আইনজীবী ছিলেন। ছোট বেলাতে বাবা কোর্টে যাওয়ার আগে চেষ্টার করতাম তার সঙ্গে বের হয়ে যাওয়ার। আমার খুব ভালো লাগতো বাবা কোথায় যাচ্ছেন তা দেখার। আমার মনে আছে একদম ছোট থাকতে একদিন বাবার সঙ্গে একবার সিলেট কোর্টে গিয়েছিলাম। সেদিন প্রথম কোর্টের প্রসিডিং দেখেছিলাম। আমার কাছে খুব ইন্টারেস্টিং লেগেছিল। মনে হচ্ছিল সিনেমার দৃশ্য দেখছি। বাস্তব জীবনে যে এ রকম হয় তা জানতাম না। বাবার সঙ্গে কোর্টে গিয়ে প্�%B

Mujib Borsho

সর্বশেষ

শীর্ষ সংবাদ:
উন্নয়নের রূপকার শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন আজ         সংগ্রাম ও সাহসের এক নাম শেখ হাসিনা         প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে টিকা ক্যাম্পেইন শুরু কাল         ডেঙ্গুতে আজও দুই মৃত্যু, শনাক্ত ২১৪         রেলের উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখছে ভারত: রেলমন্ত্রী         শেখ হাসিনার জন্মদিনে আওয়ামী লীগের কর্মসূচি         ঢাবির সাংবাদিকতা বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার         শেখ হাসিনা এক জীবন্ত কিংবদন্তি: তথ্যমন্ত্রী         করোনাভাইরাসে ২৪ ঘণ্টায় বেড়েছে মৃত্যু-শনাক্ত         ইউপি নির্বাচনে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিরীহ পারুলকে খুন         নিজ ঘরে মিলল নারী ব্যাংক কর্মকর্তার লাশ         চোর সন্দেহে নারীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ         জেল থেকে মুক্তি পেল ফিলিস্তিনি নেতা খালিদা জারা         ভারতের উপকূল অতিক্রম করেছে ‘গুলাব’, নামল সংকেত         ১৪ নভেম্বর এসএসসি, ২ ডিসেম্বর এইচএসসি পরীক্ষা         জার্মানির নির্বাচনে হেরে গেল মারকেলের দল         রাজনীতিকে বিদায় জানালেন প্রণবকন্যা শর্মিষ্ঠা         নারী সংখ্যাগরিষ্ঠ সংসদ গড়ে আইসল্যান্ডের ইতিহাস         আফগানিস্তানের বন্ধ হচ্ছে নারীদের ড্রাইভিং প্রশিক্ষণকেন্দ্র         মধ্যরাতে শিশু পুত্রকে গলা কেটে হত্যা করলেন মা         করোনা : সংক্রমণে যুক্তরাজ্য, প্রাণহানিতে শীর্ষে রাশিয়া