বুধবার, ২ আষাঢ় ১৪২৮
১৬ জুন ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

রাতে নারীর রাস্তায় চলাচলে প্রতিবন্ধকতা

নাছিমা মুন্নী: বেগমগঞ্জ চৌরাস্তা। রাত আটটা। সুনসান নীরবতা। বাসের জন্য অপেক্ষারত আমি। কোনো বাস আসা যাওয়া নেই বললেই চলে। দেখলাম সোনাইমুড়ির দিকে একটা বাস যাবে। অল্প কিছু যাত্রী বাসে বসে আছে। যাত্রীদের জন্যে অপেক্ষারত বাস। যাত্রীদের আনাগোনাও কম। তখন এসব রুটে রাত আটটা সাড়ে আটটায় দুই একটা বাস চলাচল করতো।

লক্ষ্মীপুর যাওয়ার মতো তেমন কোনো বাস দেখতে পেলাম না। কিভাবে লক্ষ্মীপুর পৌঁছাবো? এদিক ওদিক তাকাতেই হঠাৎ চোখ পড়লো রাস্তার পাশে যাত্রীদের জন্য দাঁড়িয়ে থাকা রিকশাগুলোর দিকে। প্রতিটি রিকশায় একজন করে ছেলে বসে আছে। তাদের প্রত্যেকের বয়স ১৫ থেকে ২০ বছরের মধ্যে। তাদের প্রত্যেকের দৃষ্টিই ছিল আমার দিকে।

ভুল করে আমি নেমে গিয়েছিলাম চৌরাস্তায়। আমার সাথের সংবাদকর্মীরা কেউ লক্ষ্মীপুর যাবে, কেউ রামগতি। আমিও লক্ষ্মীপুরে যাব। এই পথে তখন যাত্রা পথে চলাচলে এতো অভ্যস্ত হয়ে উঠিনি আমি। ভেবেছিলাম সবাই এখানে নেমে অন্য বাস ধরবে। সামনের সিটে বসা ছিলাম আমি। যাত্রীদের ভিড় ছিল অনেক। নেমে দেখি আমার সাথের কেউ এখানে  নামেনি।

একা নেমে ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম আমি। যে গাড়ি থেকে নেমে গিয়েছিলাম, সে গাড়ি চৌমুহনী বাসস্ট্যান্ড হয়ে আবার এ পথ দিয়েই যাবে। কিন্তু সে গাড়িও আসার নাম নেই। অগত্যা দাঁড়িয়ে থাকা ছাড়া উপায় নেই।

দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে এদিকে ওদিক তাকাচ্ছি আর হাতে থাকা পাক্ষিক লোকসংবাদ নেড়েচেড়ে দেখছি। আমার একটা লেখাও ছাপানো হয়েছে এতে। লেখালেখি তখন খুব আগ্রহের একটা জায়গা। যাই লিখছি ছাপা হয়ে যাচ্ছে। পাক্ষিক লোকসংবাদ খুব আপন একটা অনুভূতি তৈরি করেছে। ম্যাস-লাইন মিডিয়া সেন্টার (এমএমসি) এর সেদিন তৃণমূল সংবাদকর্মীদের নিয়ে একটি ওয়ার্কশপ করেছিল। ওয়ার্কশপ শেষে আমরা সবাই লেখার সম্মানি নিতে গিয়ে দেরি করে ফেলেছিলাম।

সময় যতো যাচ্ছে ভয় ততো বাড়ছে। বাসের পথ পানে চেয়ে আছি আর ক্ষণে ক্ষণে রিকশাগুলোর দিকে চোখ চলে যাচ্ছে আমার । চোখে চোখ পড়তেই ছেলেগুলোর চোখগুলো খুব ভয়ঙ্কর লাগছিল আমার।

ভাবছি কি করবো। আবার ভাবছি সংবাদকর্মীদের এতো ভয়ে পেলে কি চলে? আবার মনে হচ্ছিল, আমি একটা মেয়ে কিইবা করতে পারবো। যদি আর বাস না আসে। আমি কিভাবে পৌঁছাব আমার গন্তব্যে। উহ্! আর ভাবতেই পারছি না। ভাবছি বিকল্প কিছুও।

হঠাৎ কোথা থেকে হাজির হলো বড় চাচার কলিগ রহমান চাচা। আমার বড় চাচা তখন লক্ষ্মীপুর কৃষি ব্যাংকের ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত। রহমান চাচা আমাকে দেখে আমার কুশলাদি নিচ্ছেন। আমার সাথে কথা বলছেন তিনি। এরই মাঝে রিকশায় বসে থাকা ছেলেগুলো ওনাকে হাত দিয়ে ইশারা করে ডেকে নিল। রহমান চাচাকে তারা জিজ্ঞেস করছিলো, আমি ওনার কি হই? কোথা থেকে এসেছি? উনাকে তারা হুমকি দিয়ে বলেছিল, তিনি যেন এই মুহূর্তে এ জায়গা ছেড়ে চলে যান। নইলে উনি আর এখান থেকে ফিরতে পারবে না।

রহমান চাচা আমার কাছে এসে আমতা আমতা করে বললেন, মা তুমি দ্রুত এ জায়গা ছাড়তে হবে। লক্ষ্মীপুরের যে বাসই আসুক, যতো ভীড় থাকুক, তোমাকে সে বাসে তুলে দেব। তুমি তাড়াতাড়ি এখান থেকে চলে যেতে হবে। নইলে কঠিন বিপদ হবে। আমি রহমান চাচার চোখেমুখে ভয় দেখছিলাম। সেই মুহূর্তে আমি কী বলবো ওনাকে বুঝতে পারছিলাম না। শুধু এ জায়গা প্রস্থান করতে হবে এতটুকু আমি বুঝেছিলাম।  

আমার আর রহমান চাচার কথোপকথনের ঠিক সেই মুহুর্তে লক্ষ্মীপুরের দিকে যাবে এমন একটা বাস এসে আমার পাশেই থামল। বাসে অনেক ভীড় ছিল। তিল পরিমাণ জায়গা ছিল না। অনেক যাত্রী বাসে দাঁড়িয়েছিল। রহমান চাচা বাসের কন্ট্রাক্টটরকে বললেন, একটা মহিলা সিট ম্যানেজ করে দেন ভাই। সাথে সাথে আমি বাসে উঠলাম। আর বাসের কন্ট্রাক্টটর আমাকে বাসের দ্বিতীয় সিটে একটি সিট দেখিয়ে বসতে বললেন।

রহমান চাচা রাস্তায় দাঁড়িয়ে বাসের জানালার পাশে এসে হাত নেড়ে আমাকে বিদায় জানালেন। আমি জানালার বাইরে তখন তাকিয়েছিলাম। আমি তখন রহমান চাচার কথা ভাবছিলাম। আমি তখন অনেকটাই বিপদমুক্ত। কিন্তু উনাকে বিপদে ফেলে আমি চলে যাচ্ছি।

রিকশায় বসে থাকা ছেলেগুলো বাসের জানালার কাছে এসে আমাকে হাত নেড়ে বিদায় জানালো। কেন জানালো আমি আজও জানিনা। একজন বললো, আপা কোনো সমস্যা নেই তো? আমি ছেলেটার একথা শুনে কি উত্তর দেব ভেবে পেলাম না। কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে বাসে বসে রইলাম।

আজ থেকে দুই দশক আগে রাত আটটায় রাস্তায় আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভয়ে কুঁকড়ে গিয়েছিলাম, প্রতিদিনই কত মেয়ে রাতে রাস্তায় এমন কুঁকড়ে যায়। কত ভয়াবহ পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়। দুই দশক পরও ভাবছি, একজন মেয়ের রাতে একা নির্ভয়ে চলার, নিরাপত্তার কোনো কি পরিবর্তন হয়েছে?

বাংলাদেশে নারী যাত্রীরা  রাতে চলাচলের ক্ষেত্রে পরিবহন সংশ্লিষ্ট লোকজন বাসস্ট্যান্ড এলাকার বখাটে যুবক  কিংবা পুরুষ যাত্রীদের দ্বারা শারীরিক কিংবা মানসিক নির্যাতনের শিকার হন । একদিকে নিরাপত্তাহীনতা অন্যদিকে সামাজিক অসচেতনতার কারণে দিন দিন নির্যাতন ও নিগ্রহের ঘটনা বাড়ছে। নিরাপত্তার জন্য আইন-শৃংখলা বাহিনীর দৃশ্যমাণ তৎপরতা বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে নারীদের প্রতি সংবেদনশীল হতে হবে সংশ্লিষ্ট সকল পর্যায়ে।

রাতে নিরাপত্তার জন্য পুলিশের টহল গাড়ি আরো বাড়াতে হবে। বাংলাদেশে দূরপাল্লার বাসগুলোতে রাতের বেলায় যেসব নারী যাত্রী ভ্রমণ করেন তাদের জন্য কি কোনো নিরাপত্তা আছে? এসব পরিবহনে নিরাপত্তা বলতে সড়কে পুলিশের টহল আর বাসে কোম্পানি নিযুক্ত সুপারভাইজার। ফলে দিনের বেলা নারীদের স্বাভাবিক চলাচল দেখা গেলেও রাতে তা অনেকটাই কমে আসে।

রাতে নারীদের নিরাপত্তার জন্য সরকারের সময়োপযোগী ব্যবস্থা নেয়া দরকার। আমাদের পুরুষদেরও মানসিকতা পরিবর্তন খুব জরুরি । কিন্তু গণরিবহনে নারীদের নিরাপত্তাবোধের এই অভাব দূর করার কি কোনো উপায় আছে ? আসলে পুরো নগরীটাকেই নারীবান্ধব হতে হবে।

যে শহরে দিনের বেলা নারীরা নিরাপদ নয়, সে শহরে রাতেও নিরাপদ হবে না। নিরাপদ করতে হলে শহরটাকেই নারী বান্ধব করতে হবে। বাসের যারা হেলপার, ড্রাইভার আছেন তাদের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে। যেন বিপদে পড়লে নারীরা তাদেরকে রিপোর্ট করতে পারে এবং তারাও নারীদের সহায়তায় এগিয়ে আসে।

কিছু কিছু ক্ষেত্রে সমাজ বা রাষ্ট্রের আচরণে মনে হয় নারীর নিরাপত্তার বিষয়টি সমাজের কাছে বেশ অপাংক্তেয়। সমাজ জীবনের এমন একটি জায়গা পাওয়া যাবে না যেখানে নারী নিরাপদ, যেখানে নারীকে যৌন হয়রানির শিকার হতে হয় না। একজন নারীকে জন্মের পর থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত প্রতিনিয়ত ভাবতে হয় তার নিরাপত্তার কথা। তাকে প্রতিনিয়ত আতংকে দিন কাটাতে হয় ।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী করোনা নামক মহামারি বাতাসের সাথে ছড়িয়ে নিভিয়ে দিচ্ছে মানবসভ্যতার জীবনী শক্তি। মানুষ যখন প্রতিটি মুহূর্তে মৃত্যুর প্রহর গুণছে ঠিক এক বিভীষিকাময় পরিস্থিতিও থামিয়ে দিতে পারেনি যৌন সহিংসতা নামক দানবদের। এমন বিভীষিকাময় মুহূর্তেও তাদের হাত থেকে রক্ষা পায়নি নারী সমাজ।

দেশের উন্নয়নে পুরুষের পাশাপাশি নারীও সমানভাবে অংশগ্রহণ করছে। তবুও হাজারখানেক বাধা অতিক্রম করতে হয় শুধু নারীকেই।

আগে বাংলাদেশে নারীদের এতটা নিরাপত্তাহীনতা ছিল না। কিন্তু দিন দিন বেড়েই চলছে নারীর চলাচলের প্রতিকূলতা। বাংলাদেশে নারীরা এখনও নিরাপত্তার দিক থেকে অনেক পিছিয়ে। এখনও নারীরা সন্ধ্যার পর বা রাতে একা কোথাও যাওয়া আসা করতে ভয় পান। একা দূরের ভ্রমণে নারীর রয়েছে এখনো হাজারো প্রতিকূলতা। পরিবার থেকেও অনেক বাধা আসে নারীর একা চলাফেরায়। একা চলাফেরায় অভ্যস্ত নারীরাও রাতে খুব কমই রাস্তায় বের হন। বাংলাদেশে যেখানে সব ক্ষেত্রে নারী পুরুষের সমান অধিকার সেখানে গণপরিবহনে একা নারীর নিরাপত্তাহীনতা নিঃসন্দেহে একটি বড় প্রশ্নবোধক।

লেখক: উন্নয়নকর্মী

শীর্ষ সংবাদ:
রাজধানীতে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা         সেতু আছে; রাস্তা নেই, সংযোগ সড়ক!         আমার বিশ্বাস সঠিক বিচার পাব: পরীমণি         মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে নারীদের চাকরি         ‘যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এসএসএফকে দক্ষ করা হচ্ছে’         ‘দুর্যোগেও চাল উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন তৃতীয় স্থানে’         দেশে এক ডোজের করোনা টিকার অনুমোদন         মাদক মামলায় ৭ দিনের রিমান্ডে নাসির-অমি         অনিয়ম মোকাবিলায় হজ ও ওমরাহ পরিচালনা বিল পাশ         ডিবি কার্যালয়ে পরীমণি         জিততে পারল না আর্জেন্টিনা         আজ বর্ষার প্রথম দিন         চীনা কুকুর ছিনিয়ে নিলো বিজয়ের মুকুট         পরীমণির মামলা তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ         পরীমণিকে ডিবি কার্যালয়ে ডাকা হয়েছে         আপনারাই আমার সাহস: পরীমণি         আফগানিস্তানের নারী পুলিশ সদস্যরা যৌন নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন         গার্ড অব অনারে নারী ইউএনও'র আপত্তির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবি         জাতিসংঘ মিশনে ‘বঙ্গবন্ধু লাউঞ্জ’         ফেনীতে একসঙ্গে ৪ কন্যাসন্তানের জন্ম         ‘নারীর অধিকার দেয়ার ব্যাপারে সৌদি পুরুষ ভীষণ ভীত’