মঙ্গলবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
১৮ মে ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

ঝাঁলমুড়ি বিক্রি করে চলে মর্জিনার সংসার

হাসানুজ্জামান হাসান: ‘১৪ বছর থাকি দোকান কোনা করি কোনো রকম চলি। বয়স্ক ভাতা, ভিজিডি কার্ড কিছুই হয় নাই। ছাওয়ার ঘর (ছেলে-মেয়ে) করিমিলি নিজে খায়। অসুস্থ স্বামীক নিয়া বিপদে আছুং(আছি)। কাইয়ো (কেউ) হামাক দ্যাখে না। এভাবেই বলছিলেন তিস্তা পাড়ের ঝাঁলমুড়ি বিক্রেতা মর্জিনা বেগম(৬০)।’

তিরি আরো বলেন, ‘ভোটের সময় আইসে মেম্বার-চেয়ারম্যান! আর কোনো খোঁজ নাই। ভোটার আইডি কাটোত (কার্ডে) ভুল হইছে সেই জন্যে কোন না পাং(কিছু পায় না)। বয়স (৬৫)সেটে হইছে(৪৫)। হামাক দয়া করি কাও যদি সহায়তা করিল হয় তাইলে ভালো ভাবে চলির পাইতাম।

প্যারালাইস আক্রান্ত বৃদ্ধ স্বামী লুৎফর রহমানের (৭০) স্ত্রী মর্জিনা বেগম। চার সন্তানের জননী। তিন ছেলে এক মেয়ে। দিন মজুর ও রিকশা চালক ছেলেদের সংসার চলে টানা পোড়ার মধ্যে। তাই বৃদ্ধা মর্জিনা বেগম পরিবারের বোঝা হয়ে না থেকে বেছে নিয়েছে এই পথ।

প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঝাঁলমুড়ি, বাদাম, চানাচুর ও আঁচার বিক্রি করে আয় হয় ২৫০০/৩০০ টাকা। তা দিনে কোনো রকম অসুস্থ স্বামীর ঔষধ কিনে। সন্ধ্যা হলে বাসায় ফিরে করতে হয় ঘরের কাজ। ভাগ্যে জোটেনি একটি বয়স্ক ভাতা ও ভিজিডি কার্ড!

মর্জিনা বেগম রংপুরের গংগাচড়া উপজেলার লক্ষিটারী ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ড খ্যান পাড়া এলাকার লুৎফর রহমানের স্ত্রী।নেই থাকার মত একটি ঘর! ছেলের দেয়া ঘরে অসুস্থ স্বামীকে নিয়ে কোনো রকম রাত্রি যাপন করেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, গংগাচড়া মহিপুর তিস্তা বাঁধের নিচে ঝাঁলমুড়ি বিক্রি করছে মর্জিনা। বিভিন্ন স্থান থেকে ঘুরতে আসা দর্শনার্থীরা ঝুালমুড়ি খাচ্ছে। শুক্রবার সরকারি ছুটির দিন বিভাগীয় শহর রংপুর থেকে ঘুরতে আসে অনেক দর্শনার্থী। সে দিন তুলনামূলক বেশি বিক্রি হয়। তবে ঝাঁলমুড়ি বিক্রি করে তার সংসার চালানো সম্ভব হচ্ছে না।

স্থানীয় রমিজ উদ্দিন বলেন, ‘এই মহিলার খুব কষ্ট। স্বামী অচল। কর্ম করতে পারেনা। থাকার মত নিজের একটা ঘরও নাই। ছেলেদের দেয়া ঘরে থাকে। ছেলেরা নিজেরা করে মিলে খায়। এনাক দেখার মত কেউ নেই।তাই ঝাঁলমুড়ি বিক্রি করে কোন রকম চলে। এনাকে কেউ যদি কিছু সাহায্য করতো তাহলে শেষ বয়সে ভালো ভাবে চলতে পারতো।’

লক্ষিটারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হাদী জানায়, ‘তিনি অনেক অসহায়। বিষয়টি আবগত আছি। তার আইডি কার্ড জটিলতার কারণে ভাতা হয়নি। তবে তাকে আইডি কার্ডের তারিখ সংশোধন করতে বলা হয়েছে। ভোটার আইডি কার্ড ঠিক হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।'
 

Mujib Borsho

সর্বশেষ

শীর্ষ সংবাদ:
সাংবাদিক হেনস্থা করায় দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে         স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের রিপোর্ট করায় আমার সাথে অন্যায় হচ্ছে : রোজিনা         রিমান্ড নাকচ, সাংবাদিক রোজিনাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ         স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ব্রিফিং বয়কটের ঘোষণা সাংবাদিকদের         রোজিনা ইসলামকে ৫ দিনের রিমান্ডে চায় পুলিশ         সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নেওয়া হলো আদালতে         একজন সাংবাদিকের প্রথম কাজ সত্য খুঁজে বের করা         রোজিনাকে সচিবালয়ে আটকে রেখে মারধর         প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা         রোজিনা ছিঁচকে চোর না, সে এদেশের সবচেয়ে নন্দিত সাংবাদিক         আমার বিরুদ্ধেও মামলা দেন         সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের সুচিকিৎসা দিয়ে দায়িত্ব পালনে ফিরে যেতে দেওয়া হোক         পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে থানায় নেওয়া হলো প্রথম আলোর রোজিনা ইসলামকে         প্রথম আলোর রিপোর্টারকে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগে আটকে হেনস্থা করা হয়েছে         জীবনযুদ্ধে জয়ী আকলিমা চাকরি পেলেন পৌরসভায়         মাথাপিছু আয় এখন ২২২৭ ডলার         সংবাদ মাধ্যমের অফিস লক্ষ্য করে ইসরাইলি হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে জাতীয় প্রেস ক্লাব         ভারতফেরত তরুণীকে কো'য়ারেন্টিনে ‘ধ'র্ষণ’, এএসআই গ্রে'প্তার         সেদিন অনেক ঝড় মাথায় নিয়েই দেশে এসেছিলাম: শেখ হাসিনা         ব্যাংক কর্মকর্তারা দুর্নীতি করলে জরিমানা-মামলা         পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত বর্ডার বন্ধ