মঙ্গলবার, ২৮ বৈশাখ ১৪২৮
১১ মে ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

‘ডক্টর অব মিউজিক’ সম্মানে ভূষিত মমতাজ

উইমেনআই২৪ প্রতিবেদক: ভারতের তামিলনাড়ুর ‘গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটি’ বাংলাদেশের ফোক সম্রাজ্ঞী ও মাননীয় সংসদ সদস্য মমতাজ বেগমকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি ‘ডক্টর অব মিউজিক’ প্রদান করেছে।

গত শনিবার বিদেশি ওই উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে তাকে এই সম্মানসূচি ডিগ্রি দেওয়া হয়।

সারা পৃথিবীতে একমাত্র সঙ্গীত শিল্পী হিসেবে আট শতাধিক অ্যালবামের বিশ্ব রেকর্ড, সুদীর্ঘ ত্রিশ বছর যাবত বাংলা গানকে বিশ্ব  দরবারে তুলে ধরাসহ লোকজ সঙ্গীতকে আধুনিকায়ন করে সর্বমহলে গ্রহণযোগ্য করার ক্ষেত্রে শিল্পী মমতাজের রয়েছে বিশেষ অবদান। পাশাপাশি চলচ্চিত্র সঙ্গীতে একাধিকবার জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্তি তথা দেশী-বিদেশি অসংখ্য সম্মাননা অর্জন, সমাজ সচেতনতামূলক নানামুখি গানের মাধ্যমে বিশেষ ভূমিকাসহ সার্বিক মূল্যায়ন যাচাইয়ে মমতাজ বেগমকে ‘গ্লোবাল হিউম্যান পিস ইউনিভার্সিটি’ সম্মানসূচক ওই পদকে ভূষিত করে। পদক ফোক সম্রাজ্ঞীর হাতে তুলে দেন ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান ড. পি ম্যানুয়েল।

গানের মমতাজ
দুই দশকের বেশি তার পেশাদারী সংগীত জীবনে ৭০০টির বেশি একক অ্যালবাম প্রকাশ পায়। মমতাজ প্রথম জীবনে বাবা মধু বয়াতি, পরে মাতাল রাজ্জাক দেওয়ান এবং শেষে লোক গানের শিক্ষক আবদুর রশীদ সরকারের কাছে গান শেখেন।

তিনি যুক্তরাজ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের অনেক দেশেই সংগীত অনুষ্ঠানে গান গেয়েছেন

২০০০ সালে হানিফ সংকেতের আমন্ত্রণে জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’-তে গান করতে আসেন তিনি।  মো. রফিকুজ্জামানের কথায় ও সোহেল আজিজের সুরে ইত্যাদিতে তিনি অবশেষেগাইলেন ‘রিটার্ন টিকিট হাতে লইয়া আইসাছি এই দুনিয়ায়/ টাইম হলে যাইতে হবে যাওয়া ছাড়া না উপায়’ গানটি।সেই গান রাতারাতি পৌঁছে গেল কোটি কোটি শ্রোতার কাছে।

মৌলবাদী হামলার মুখেও পড়তে হয়েছে তাকে। নিরবে কেঁদেছেন অপমানে। তবে থেমেথাকেননি। পেয়েছেন
জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

জন্ম ও পারিবারিক পরিচয়
মমতাজ ৫ মে ১৯৭৪ সালে মানিকগঞ্জ জেলার সিঙ্গাইর উপজেলায় জন্ম।
মা উজালা বেগম, বাবা মধু বয়াতি ছিলেন বাউল শিল্পী।

রাজনীতির মমতাজ
২০০৯ সালে নবম জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কর্তৃক সংসদ সদস্য হন।
২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সরাসরি দলের মনোনয়নে নির্বাচিত হন। 
২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুনরায় সরাসরি দলের মনোনয়নে তিনি মানিকগঞ্জ-২ আসন থেকে নির্বাচিত হন।

সমাজকর্মে মমতাজ
মানিকগঞ্জ শহরের জয়রা রোডে ২০০৪ সালের ৭ জানুয়ারি প্রতিষ্ঠা করেন মমতাজ চক্ষু হাসপাতাল।
২০০৮ সালে সিঙ্গাইর উপজেলায় তাঁর গ্রামের বাড়িতে প্রতিষ্ঠা করেন ‘মমতাজ শিশু ও চক্ষু হাসপাতাল’।
বাংলাদেশ বধির ক্রীড়া ফেডারেশনের সভাপতি । 
আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার শুভেচ্ছাদূত নির্বাচিত হন ২০১০ সালে। 
আন্তর্জাতিক চক্ষু চিকিৎসা সংস্থা অরবিসের দৃষ্টিদূত 
অস্ট্রেলিয়ার একটি শিক্ষাবিষয়ক সংস্থার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর

শীর্ষ সংবাদ:
চঞ্চলের পরিচয় নিয়ে ফেসবুকে কটূক্তির জোয়ার         ৫০০ পরিবারের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ         করোনা পরীক্ষার নতুন ফি নির্ধারণ         ‘চ্যালেঞ্জিং পেশায় নারীদের অংশগ্রহণ বাড়ছে’         ‘সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গাছ কাটা যাবে না’         যমুনা গ্রুপে চাকরি         কাল থেকে ঈদের ছুটি শুরু         পন্টুনের তার ছিঁড়ে মাইক্রোবাস নদীতে         বৈদ্যুতিক ট্রেনের যুগে বাংলাদেশ         বাংলাদেশ থেকে কুয়েতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা         ‘চীনকে চিঠি দিয়েছে সরকার’         কানাডায় ভ্যাকসিন: 'ম্যাচ অ্যান্ড মিক্স' এর পরিকল্পনা         চঞ্চল চৌধুরী, তুমিই মানুষ!         সমাজসেবায় তরুণ প্রজন্ম         করোনাভাইরাস ছড়ায় যেভাবে         চলছে সন্ধ্যা রায়ের জীবনমরণ লড়াই         দেশে টাকায় মিলল করোনার উপস্থিতি         বাংলাদেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিল থাইল্যান্ডও         আমার সবকিছুর মৌলিক ভিত্তি আমার মা: জয়া         নিখোঁজের তিন দিন পর তরুণের লাশ উদ্ধার