মঙ্গলবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮
১৮ মে ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

‘ধর্মনিষ্ঠরা এটুকু মানলেই যথেষ্ট’

আনোয়ার হোসেইন মঞ্জু: ‘কোনো কোনো গ্রেফতারের ঘটনায় আমি ক্ষুব্ধ হই ও দুঃখ অনুভব করি। বিনা কারণে গ্রেফতারের পর রাজনৈতিক নেতাদের গাড়ি পোড়ানো, বোমা তৈরি অথবা এ ধরনের মামলায় আসামি করার ঘটনায় আমি বিস্মিত হই। পুলিশী কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত ‘রিমান্ড,’ ‘ক্রসফায়ার,’ ও ‘এনকাউন্টার’ জাতীয় শব্দগুলো শুনলে ভীত হই। আমি জানি, আমার ‘ক্ষোভ’, ‘বিস্ময়,’ ও ‘ভীতি’তে কোনো কিছুর পরিবর্তন ঘটবে না। যেভাবে যা চলছে, তা চলতেই থাকবে। আমার মাঝে বৈপরীত্যও আছে। কোনো কোনো গ্রেফতারের ঘটনায় আমি বিরল আনন্দও লাভ করি। সাম্প্রতিককালের একটি গ্রেফতারে আমি খুশি হয়েছি। সেটি ছিল ‘শিশু বক্তা’ হিসেবে পরিচিত রফিকুল ইসলাম মাদানির গ্রেফতার। তার বয়স ২৭ বছর হলেও তিনি খর্বাকৃতির। ‘গ্রোথ হরমোনের’ ঘাটতির কারণে তার দেহের পরিপূর্ণ বিকাশ ঘটেনি। এতে তার কোনো ভূমিকা ছিল না। সৃষ্টিকর্তা তাকে এভাবেই পৃথিবীতে আনতে পছন্দ করেছেন। তার গ্রেফতারে আমার খুশি হওয়ার কারণ, ধর্মীয় সমাবেশে তার বক্তৃতায় উস্কানিমূলক ও ধৃষ্টতাপূর্ণ কথাবার্তা।’

‘আমি সাধারণত কোনো ধর্মীয় বক্তৃতা শুনি না। শৈশবে দাদার হাত ধরে দু’একটি ধর্মসভায় গেছি, ওই পর্যন্তই। তবে এখন মোবাইল সেট হাতে থাকলে স্ক্রল করার সময় অনেক কিছুর সঙ্গে ধর্মনিষ্ঠদের আপলোড করা ভিডিও থাকে এবং বিনোদনমূলক হলে সেসব ভিডিও দেখতে কয়েক মিনিট ব্যয় করি। এভাবেই রফিকুল ইসলামের বক্তৃতার সঙ্গে কিছুটা পরিচয় হয়েছে। আমি তার কিছু জ্বালাময়ী কথা শুনেছি; যেমন: “কিসের সংবিধান, কিসের প্রেসিডেন্ট, কিসের প্রধানমন্ত্রী? আমি সংবিধান মানি না, প্রেসিডেন্ট-প্রধানমন্ত্রী মানি না। আমার সংবিধান কোরআন, আমার প্রেসিডেন্ট-প্রধানমন্ত্রী মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) ইত্যাদি।” তার বক্তৃতা শুনে শ্রোতারা হর্ষধ্বনি তোলো, আল্লাহ-রাসুলের শানে শ্লোগান দেয়।’

‘রফিকুল ইসলামের পুরো বক্তৃতায় হয়তো এ ধরনের আরও উত্তেজনাপূর্ণ অবান্তর কথাবার্তা রয়েছে। আমার শোনা হয়নি। রফিকুল ইসলাম ছাড়াও আরও কিছু ধর্মীয় বক্তার বক্তৃতায় একই ধরনের ধৃষ্টতামূলক কথা শুনেছি। কাফির, মুশরিকদের হত্যা করার কথা পর্যন্ত উচ্চারিত হয় তাদের কথায়। সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য এমন বচন যথেষ্ট ভূমিকা রাখতে পারে। বক্তৃতা না শুনলেও আমি ধর্মবিষয়ক প্রচুর গ্রন্থ পাঠ করেছি, এখনো করি। আমি এক সময় বাইবেল স্টাডিজের ছাত্র ছিলাম এবং তিন বছর পড়াশোনার পর পুরস্কৃত হয়েছিলাম। আমি বিভিন্ন ধর্মের অভিন্ন বক্তব্য সততা, অহিংসা, মানবিকতা, পরমতসহিষ্ণুতা ও বিনয়ী হওয়ার শিক্ষা থেকে উপকৃত হয়েছি। কিন্তু রফিকুল ইসলাম বা তার মতো অন্যান্য তথাকথিত ধর্মীয় নেতাদের বক্তব্য ও আচরণ আমাকে ব্যথিত করে। এসব বক্তা ছাড়াও আমি এমন অনেক নামাজি মানুষকে দেখেছি, যারা বেনামাজিদের মানুষ বলেই মনে করে না। বলা যায় তাদের আচরণেই আমার যৎসামান্য ধর্মচর্চাও ব্যাহত হয়েছে। কিন্তু ওইসব তুখোড় ধর্ম চর্চাকারীদের অনেককেই ধর্মের পথ ছেড়ে দিতেও দেখেছি। অপরদিকে ধর্মে অবিশ্বাসী অনেক কমিউনিস্টকে দেখেছি, যারা অতি বিনয়ী, পরোপকারী, মৃদুভাষী।’

“বারো হাত বাঙ্গির তেরো হাত বিচি” হলে যা হয় সম্ভবত রফিকুল ইসলামের ক্ষেত্রে তাই প্রযোজ্য। ছোটো বেলায় শুনতাম “খাটো মানুষ পয়গম্বের দুশমন।” আমি তা মনে করি না। রফিকুল ইসলাম শুধু খাটো নন, তার দাড়ি গোঁফও গজায়নি। এ ধরনের লোককে আমরা ‘মাকুন্দ’ বলি। এটাও হরমোনগত কারণে হয়। অসামঞ্জ্যপূর্ণ কিছু দেখলেই সেটি নিয়ে হাস্য-পরিহাস করা মানুষের স্বভাব। অতএব খর্বাকৃতি বা মাকুন্দ, টাকমাথা মানুষ দেখলে অনেকে মজা নেওয়ার চেষ্টা করে। যদিও আমরা ‘বাল্যশিক্ষা’য় পড়েছি, “কানাকে কানা ও খোড়াকে খোড়া বলিও না, তাহা হইলে তাহারা মনে কষ্ট পায়।” কিন্তু তারা কষ্ট পেলেও আমরা বলি। শুধু আমরাই বলি তা নয়। মহাভারতের কাহিনিতেও দেখা যায় প্রচণ্ড শক্তির অধিকারী ‘ভীম’ এর দাড়ি-গোঁফ ছিল না বলে কর্ণ তাঁকে “মাকুন্দ” বলে রসিকতা করতেন। খনার বচনেও দেখা যায়, “যদি দেখ মাকুন্দ চোপা/এক পা যেও না বাপা।” কবি শামসুর রাহমান তাঁর ‘আমার একজন প্রতিবেশী’ কবিতার এক স্থানে বলেছেন, “সেদিন দেখলাম চৌরাস্তায় একজন স্যুট পরা মাকুন্দ/গবাগব গিলছে সংস্কৃতির শালপাতা।” অতএব এসব গায়ে না মেখেই ওই সমস্ত বৈশিষ্ট্যধারী লোকজনকে চলতে হবে। রফিকুল ইসলামের কথামালায় আকৃষ্ট মানুষের সমাগমে সমাবেশ উপচে পড়লেই তার বা মঞ্চে উপবিষ্টদের বুদ্ধিভ্রমের কারণ না ঘটলেই ভালো। “সংবিধান মানি না, আইন মানি না” -- এইসব কী? তাকে যারা আমন্ত্রণ করেন তারা তো প্রথমেই সংবিধান অনুযায়ী তৈরি আইনের অধীনে সমাবেশ অনুষ্ঠানের অনুমতি নেন। সমাবেশ করা সংক্রান্ত আইনে উল্লেখ করা আছে কী করা যাবে এবং কী করা যাবে না। এই অঙ্গীকার করে সমাবেশ আয়োজনের পর যদি কেউ বলে সংবিধান মানি না, অমুক অমুককে মানি না, তাহলে প্রশাসনের এখতিয়ার রয়েছে সমাবেশ বন্ধ করে দেওয়ার। অনেক ক্ষেত্রে তা হয়েছে। কিন্তু ধর্মের নামে দুর্বল লোক প্রশাসনের মধ্যেও থাকতে পারে। তারা আল্লাহওয়ালা লোকের সাথে লাগতে চায় না। তাদের অনেকে ঘুষ খায়, অন্যবিধ অন্যায়-অনাচার করে, অতএব তারাও তাদের দুর্বলতাও তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণ হতে পারে। ব্যক্তিগতভাবে রফিকুল ইসলামকেও দেশের আইন মেনে মাদ্রাসার উচ্চতর ডিগ্রি হাসিল করতে হয়েছে। খবরে পড়েছি তিনি একটি মাদ্রাসাও প্রতিষ্ঠা করেছেন। মাশাআল্লাহ! আইন অনুসরণ করেই তা করতে হয়েছে। দেশের সংবিধান কারও পছন্দ না হতে পারে, সরকারকে পছন্দ না হতে পারে। সংবিধান বা সরকারের প্রতি ক্ষোভ পোষণ ও সমালোচনা করা, এমনকি তা পরিবর্তন ও সংশোধনের কী কৌশল হতে পারে সেসব নিয়ে কথা বলা এক বিষয়, প্রকাশ্যে উস্কানি দেওয়া সম্পূর্ণ ভিন্ন।’

‘আইন কেন মানতে হবে, তা জানার জন্য উত্তেজনা সৃষ্টিকারী ধর্মীয় অথবা অন্যান্য নেতাদের সক্রেটিসের দৃষ্টান্ত অনুসরণের আহ্বান জানাই। মহামতি সক্রেটিস এথেন্সবাসীকে অজ্ঞানতা কাটিয়ে জ্ঞান অন্বেষণ করতে বলতেন, যা অনেক প্রভাবশালী, তাদের প্রতিপত্তি ক্ষুণ্ন হওয়ার আশঙ্কা হিসেবে দেখেন। সক্রেটিসকে বিচারের মুখোমুখি করা হয়। প্রভাবশালীরা তাঁর বিরুদ্ধে ধর্ম বিরোধিতা ও তরুণদের বিভ্রান্ত করার অভিযোগ আনেন এবং সিনেট তাঁকে মৃত্যুদণ্ড দেয়। তাঁর বন্ধু ক্রিটো এবং শিষ্য প্লেটো তাঁকে পরামর্শ দেন কারাগার থেকে পালিয়ে যেতে। পলায়নে তাঁকে সহায়তা করার জন্য তাঁর যথেষ্ট অনুসারী ও গুণমুগ্ধ রয়েছে বলেও জানান ক্রিটো। কিন্তু সক্রেটিস তাদের কথায় কান দেননি। তাঁর কাছে আইন মহান এবং সবসময় ন্যায়সঙ্গত। হয়তো শাসকের কারণে আইনের অন্যায় প্রয়োগ হয়। শেষ পর্যন্ত প্লেটোও তাঁর ওস্তাদের সঙ্গে একমত পোষণ করে আইনের অন্যায় প্রয়োগের সঙ্গে সমঝোতা করেছেন। সক্রেটিসের মতে, রাষ্ট্র গড়ে ওঠে আইন ও বিচার ব্যবস্থার ওপর। তা না হলে সকল আদর্শ, সত্য এবং যা কিছু তাঁর প্রিয় সব ধ্বংস হয়ে যাবে। এই আইনের প্রতি শ্রদ্ধা বজায় রাখতে গিয়ে সক্রেটিসকে মৃত্যুবরণ করতে হয়েছে।  সক্রেটিস করাগার থেকে পালানোর পরামর্শকে অগ্রাহ্য করার যুক্তি হিসেবে বলেছেন, তিনি যদি পলায়ন করেন তাহলে সমগ্র এথেন্সবাসীর কাছে এথেন্সের আদালতের কর্তৃত্ব ও গণতান্ত্রিক সরকারের কর্তৃত্বকে হেয় প্রতিপন্ন করা হবে। এথেন্স সক্রেটিসকে আশ্রয় দিয়েছে, তাঁকে শিক্ষিত করেছে, তাঁর পরিবারের দেখাশোনা করেছে, হামলাকারীদের অভিযান থেকে তাঁকে রক্ষা করেছে, তখন তো তাঁর কোনো অভিযোগ ছিল না। এখন তাঁর নিজের জন্য প্রতিকূল অবস্থা সৃষ্টি হযেছে বলে তিনি কেন এথেন্সকে ধ্বংসের উদ্যোগ নেবেন? তিনি বলেছেন, “আমাদের যদি পছন্দ না হয়, তাহলে আমরা হয় সমাজ ত্যাগ করতে পারি, বিদ্যমান পরিস্থিতি পরিবর্তনের উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারি, অথবা রাষ্ট্রের কাছে অপরাধী বিবেচিত হলে যেকোনো শাস্তি মাথা পেতে মেনে নিতে পারি।  একজন সৎ মানুষ ও সুনাগরিকের জন্য এর বাইরে আর কিছু করণীয় নেই।’ 

‘সক্রেটিস ও প্লেটোর কাছে আইন এক ধরনের বিমূর্ত ধারণা, যার প্রতিনিধিত্ব করে একটি আসন। এ আসন শুধু বসার জন্য একটি আসন নয়, এটি যে আইন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত ও সংরক্ষিত একটি আসন, সে উপলব্ধি মাথায় থাকতে হবে। অতএব “কোনো কিছু মানি না, কাউকে মানি না, অমুককে হত্যা করতে হবে” ইত্যাদি বলার আগে ভাবতে হবে যে আমি কোথায় বাস করছি, আমার এখতিয়ার কতটুকু, সংবিধান ও আইন কী বলে। সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসেছে বলাটাই যথেষ্ট নয়। তা প্রমাণ করতে হবে আন্দোলনের মাধ্যমে অথবা পরবর্তী নির্বাচন পর্যন্ত অপেক্ষা করে। কীভাবে সরকার ক্ষমতায় এসেছে তার চেয়ে বড় কথা হলো, একটি সরকার ক্ষমতায় আছে। ক্ষমতায় থাকা সম্পর্কে কোরআন কী বলেছে: “তুমি যাকে ইচ্ছা রাজ্য দান কর এবং যার কাছ থেকে ইচ্ছা রাজ্য ছিনিয়ে নাও এবং যাকে ইচ্ছা সম্মান দান কর আর যাকে ইচ্ছা অপমানে পতিত কর। তোমারই হাতে রয়েছে যাবতীয় কল্যাণ। নিশ্চয়ই তুমি সর্ব বিষয়ে ক্ষমতাশীল,” (সুরা আল-ইমরান, আয়াত: ২৬)। ধর্মনিষ্ঠরা এটুকু মানলেই যথেষ্ট।’

‘নেতৃত্বের যোগ্যতা সম্পর্কেও কোরআনে কী বলা হয়েছে রফিকুল ইসলামের মতো আকৃতিতে খাটো ব্যক্তি ও তার অনুরাগীরা স্মরণ রাখলে ব্যক্তিগতভাবে তিনি এবং সামষ্টিকভাবে তার ভক্তকূল উপকৃত হবেন। সুরা বাকারার ২৪৭ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে: “নিশ্চয়ই আল্লাহ তোমাদের ওপর তাঁকে মনোনীত করেছেন এবং তাঁকে যথেষ্ট জ্ঞান (ইলম) ও দৈহিক শক্তি (জিসম) দিয়ে সমৃদ্ধ করেছেন।” (ক্বালা ইন্নাল্লা-হাছ্ তোয়াফা হু ওয়াজা-দাহ বাসতোয়াতান ফিল ইলমি ওয়াল জিসম)। এটি যদিও রাজ্য শাসন সংক্রান্ত, কিন্তু যে কোনো পর্যায়ে নেতৃত্বের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। আমি আমার একটি ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে চাই। আশির দশকের সূচনায় মাওলানা মোহাম্মদ উল্লাহ হাফেজজি হুজুর রাজনীতিতে অবতীর্ণ হলেন। যদিও তিনি ইত:পূর্বে রাজনীতি বিমুখ ছিলেন। তখন তিনি বৃদ্ধ, বয়স ৮৫ বছর। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে তিনি জয়ীফ, অতিবৃদ্ধ। অন্যের সহায়তায় দাঁড়ান, অন্যের সহায়তায় আসন গ্রহণ করেন। উর্দু বাংলা মিশিয়ে যা বলেন তা বোঝা যায় না, বেশির ভাগ সময় শায়খুল হাদিস মাওলানা আজিজুল হক তাঁর কথা ব্যাখ্যা করেন। এমন একজন লোক হবেন বাংলাদেশের নেতা, যিনি বাংলাদেশে ইসলামী খেলাফত কায়েম করবেন। তিনি ‘বটবৃক্ষ’ মার্কা নিয়ে ১৯৮১ ও ১৯৮৬ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন।’

‘বাংলাদেশের মানুষের দুর্ভাগ্য যে তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়ে দেশে ইসলামী শাসন কায়েম করতে পারেননি। এ প্রসঙ্গে আমি শেখ সা’দীর বিখ্যাত কাব্যগ্রন্থ “গুলিস্তান” এর একটি কবিতা থেকে উদ্ধৃতি দিতে চাই: “লাঠি ছাড়া ওঠে দাঁড়াতে পারে না যে বৃদ্ধ/কী করে তার নিজের লাঠি দাঁড়াবে? ”(An old man who can not rise without the aid of a stick, How can his own stick rise.)’

একটি দিকে হাফেজজি হুজুরের চেতনা অত্যন্ত টনটনে ছিল। সাংবাদিক সম্মেলন বা জনসমাবেশে যখনই ফটো সাংবাদিকরা ফটো তুলতে শুরু করতো তিনি মুখের ওপর দ্রুত চাদর টেনে দিতেন। যাতে ফটো সাংবাদিকরা তার জান্নাতি চেহারা ধারণ করে তাকে হুরে জান্নাতদের সাহচর্য লাভের সম্ভাবনায় কোনোরূপ ব্যাঘাত না ঘটায়। তার এক সাংবাদিক সম্মেলনে আমি সুরা বাকারার ২৪৭ নম্বর আয়াতটি মুখস্থ করে গেলাম, দেখি তিনি কী উত্তর দেন। দু’একজন রিপোর্টার প্রশ্ন করার পর আমি বিনয়ের সঙ্গে আয়াতটি পাঠ করে কোরআনের আলোকে হাফেজজি হুজুর দল বা দেশের নেতৃত্ব দেয়ার যোগ্য কীনা জানতে চাইলাম। হুজুরকে সব প্রশ্নই একজন কানের কাছে মুখ নিয়ে বলে দেন। আমার প্রশ্নে উপস্থিত হাফেজজি হুজুরের গুণমুগ্ধ অন্যান্য আলেমে-দ্বীনদের একটু বিব্রত বলে মনে হলো। যিনি হাফেজজি হুজুরের কানে প্রশ্ন তুলে দেন, আমার প্রশ্নটি তিনি তাঁকে বলছেন না দেখে আমি পুনরায় আয়াতটি উচ্চারণ করে উত্তর জানতে চাইলাম। আমার ঠিক পাশেই ছিলেন শায়খুল হাদিস মাওলানা আজিজুল হক। তার সঙ্গে আমার বেশ পরিচয় ছিল। তিনি আমার হাতে চাপ দিয়ে হাসলেন এবং হুজুরের বদলে তিনিই উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করলেন। কিন্তু তার ব্যাখ্যাও যথাযথ ছিল বলে আমার মনে হয়নি। নেতৃত্বের ক্ষেত্রে শারীরিক ও মানসিক যোগ্যতা বা জ্ঞান অতি গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর। এমনকি নামাজে কে ইমামতি করবেন, সে সম্পর্কে ইসলামে সুনির্দিষ্টভাবে বলা হয়েছে।’

“ইসলাম ছাড়া অন্য কিছু মানি না,” “কোরআনের আইন চাই,” শুনতে শুনতে জীবনের সপ্তম দশকে পৌঁছে গেছি। “নয় মণ ঘিও জুটবে না, রাধাও নাচবে না।” বাংলাদেশ কোনো ইসলামী রাষ্ট্র নয়। এখানে আল্লাহর আইন কায়েম নেই। কেউ কোরআন মানলো না, আল্লাহ অস্তিত্ব মানলো না অথবা নবী মুহাম্মদকে (সা:) শেষ নবী বলে মানবো না বলেই কী ধর্মীয় সমাবেশ থেকে তাকে হত্যা করার ঘোষণা দিতে হবে? সেই ঘোষণা মেনে কেউ যদি কোনো ব্যক্তিকে হত্যাও করে সেক্ষেত্রেও তো শেষ পর্যন্ত তো রাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠিত সরকার, বিচার ব্যবস্থার ওপরই দায়িত্ব পড়বে হত্যার তদন্ত ও বিচারের। অতএব কথিত ওয়ায়েজিন, তারা যে আকৃতিরই হোন না কেন ইসলাম চর্চার মাধ্যমে মানুষকে সৎ ও বিনয়ী করে তোলার জন্য নসিহত খয়রাত করলে সেটি তাদের আখিরাতের কল্যাণে কাজে লাগবে বলেই আমার বিশ্বাস। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা রফিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছেন। তাঁকে নিশ্চয়ই রিমান্ডেও নেওয়া হবে। রিমান্ডে তথ্য আদায়ে আসামীদের পশ্চাদদেশে কী সব প্রবিষ্ট করানোর, মরিচের গুড়া ছিটিয়ে দেওয়া বা লাল পিঁপড়া ছেড়ে দেওয়ার ঘটনা শুনি। রফিকুল ইসলামের ক্ষেত্রে ওই ধরনের কিছু না করাই সঙ্গত হবে। আল্লাহ তাকে খর্বাকারে পৃথিবীতে এনেই যথেষ্ট শাস্তি দিয়েছেন।’

Mujib Borsho

সর্বশেষ

শীর্ষ সংবাদ:
সাংবাদিক হেনস্থা করায় দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে         স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের রিপোর্ট করায় আমার সাথে অন্যায় হচ্ছে : রোজিনা         রিমান্ড নাকচ, সাংবাদিক রোজিনাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ         স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ব্রিফিং বয়কটের ঘোষণা সাংবাদিকদের         রোজিনা ইসলামকে ৫ দিনের রিমান্ডে চায় পুলিশ         সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে নেওয়া হলো আদালতে         একজন সাংবাদিকের প্রথম কাজ সত্য খুঁজে বের করা         রোজিনাকে সচিবালয়ে আটকে রেখে মারধর         প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা         রোজিনা ছিঁচকে চোর না, সে এদেশের সবচেয়ে নন্দিত সাংবাদিক         আমার বিরুদ্ধেও মামলা দেন         সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের সুচিকিৎসা দিয়ে দায়িত্ব পালনে ফিরে যেতে দেওয়া হোক         পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে থানায় নেওয়া হলো প্রথম আলোর রোজিনা ইসলামকে         প্রথম আলোর রিপোর্টারকে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগে আটকে হেনস্থা করা হয়েছে         জীবনযুদ্ধে জয়ী আকলিমা চাকরি পেলেন পৌরসভায়         মাথাপিছু আয় এখন ২২২৭ ডলার         সংবাদ মাধ্যমের অফিস লক্ষ্য করে ইসরাইলি হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে জাতীয় প্রেস ক্লাব         ভারতফেরত তরুণীকে কো'য়ারেন্টিনে ‘ধ'র্ষণ’, এএসআই গ্রে'প্তার         সেদিন অনেক ঝড় মাথায় নিয়েই দেশে এসেছিলাম: শেখ হাসিনা         ব্যাংক কর্মকর্তারা দুর্নীতি করলে জরিমানা-মামলা         পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত বর্ডার বন্ধ