রবিবার, ২৫ বৈশাখ ১৪২৮
০৯ মে ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

একজন উদ্যোক্তার জন্য ভালো কাস্টমার সার্ভিস দেয়া বড় দায়িত্ব : কাকলি রাসেল তালুকদার- কর্ণধার, কাকলি'স এ্যাটায়ার

কাকলি রাসেল তালুকদার কর্ণধার ,কাকলি'স এ্যাটায়ার 

খাদিজা খানম তাহমিনা: ছোট্টবেলায়ই শাড়ির সাথে সখ্যতা গড়ে উঠে মেয়েটির। জামদানি শাড়ির প্রতি ভালোলাগাও তৈরি হয় সেই ছোট্টবেলাতেই । সেই ভালোলাগা থেকেই বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে এসে প্রায়ই ঘুরতে যেতো বিভিন্ন তাঁতিপল্লিতে এবং জামদানি সম্পর্কে জানার চেষ্টা করতো মেয়েটি।

নরসিংদীর সেই ছোট্ট মেয়ে কাকলি রাসেল তালুকদার। ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে বিবিএ শেষ করে ই-কমার্স এবং ফিন্যান্স বিষয়ে পাঁচ বছর শিক্ষকতা করেন। পারিবারিক দায়িত্বের কারণে এমবিএ অসমাপ্ত থেকে যায় তাঁর এবং চাকরিটাও ছেড়ে দেন।

পরের দু'টো বছর খুব হতাশায় কাটে। কিন্তু কর্মোদ্যমী কাকলি রাসেল তালুকদার হতাশাকে পায়ে ঠেলে ২০১৯ সালের জুনে মাত্র ৩০ হাজার টাকা পুঁজি নিয়ে শুরু করেন 'কাকলী'স এ্যাটায়ার' নামে অনলাইন ভিত্তিক উদ্যোগ।

উদ্যোগের শুরুতে কাকলী রাসেল তালুকদারকে কেউ চিনতেন না। তাঁর 'কাকলি'স এ্যাটায়ার' পেজের পাশাপাশি গ্রুপও আছে। তিনি বিভিন্ন পেজ এবং গ্রুপে ঘুরাঘুরি করতেন এবং দেখতেন, পেজগুলো একের পর এক সেলস পোস্ট দিয়ে যাচ্ছে আর লাইভ শেয়ার করছে। কাস্টমার এবং সেলারের মাঝে সুসম্পর্ক গড়ে উঠছে না। জানাশোনা হচ্ছে না। তখন  তিনি সেউ পেজগুলোকে এড়িয়ে যেতেন। কোনটা অথেন্টিক পেজ বা কারা পণ্য সম্পর্কে ভালো বুঝেন কিছুই জানতে পারতেন না। সে কারণেই তিনি ব্যতিক্রম কিছু খুঁজতে লাগলেন। যেখানে কাস্টমার এবং সেলারের মাঝে সুসম্পর্ক থাকবে এবং পণ্য সম্পর্কে জানতে পারবে। একটা সময় তিনি উইমেন এন্ড ই-কমার্স ফোরাম (উই) এর সন্ধান পেলেন। এখানে কেউ পণ্য সম্পর্কে জানাতে পেরে উপকৃত হচ্ছে আবার কেউ তাদের পণ্য সম্পর্কে জানতে পেরে উপকৃত হচ্ছে। উইতে কোন লাইভ শেয়ার নাই। সেলস পোস্ট নাই। তিনি এখানে নিয়মিত সময় দিচ্ছিলেন।

তিনি নিজেকে প্রতিষ্ঠার জন্য পেয়েছিলেন উইয়ের মতো প্ল্যাটফর্ম এবং ই-ক্যাবের প্রতিষ্ঠাতা, উইয়ের উপদেষ্টা রাজিব আহমেদের পরামর্শ।
২০১৯ সালের ১৮ অক্টোবর উই গ্রুপে প্রথম বিক্রি শুরু হয় তাঁর। ২০২০ এপ্রিল পর্যন্ত তাঁর জামদানি বিক্রি হয় ছয় লাখ টাকা। মাত্র আড়াই মাসে এসে মোট বিক্রির পরিমাণ দাঁড়ায় ২০ লাখ টাকায়!  কাকলি রাসেল তালুকদার শিখেছেন, কীভাবে পার্সোনাল ব্র্যান্ডিং করতে হয়। উই থেকে ই-কমার্স বিজনেসে পার্সোনাল ব্র্যান্ডিংয়ের গুরুত্ব জেনেছেন তিনি। তাঁর মতে, অনলাইন ব্যবসায়ে ব্র্যান্ডিংয়ের সঙ্গে ব্যক্তিগত পরিচিতির বিষয়টাও খুব গুরুত্বপূর্ণ। তিনি মনে করেন, একটি কাজের দক্ষতা এবং সে বিষয়ক সম্যক জ্ঞান থাকাটা খুবই জরুরি এবং হঠাৎ ধারণা ছাড়া কোনো ব্যবসায় নেমে গেলে সেখানে সফল হওয়া কঠিন। তিনি তাঁর কাজ নিয়ে প্রচুর পড়েছেন এবং নিজের দক্ষতা উন্নয়নের চেষ্টা করেছেন।

কাকলি রাসেল তালুকদার ২০১১-২০১৬ সাল পর্যন্ত এডেক্সেল ট্রেইনার হিসেবে শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। বর্তমানে তিনি একজন অনলাইন উদ্যোক্তা। তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নাম ‘কাকলী’স অ্যাটিয়্যার’। তাঁর সব পণ্যের মধ্যে দেশের ঐতিহ্য জামদানি পণ্যই অন্যতম।

ই-কমার্স গ্রুপ উইম্যান অ্যান্ড ই-কমার্স ফোরাম উইয়ের (কার্যকরি কমিটি) সাবেক পরিচালক কাকলি রাসেল তালুকদার জামদানি শাড়ির ব্যবসার পাশাপাশি তিনি ডিজিটাল স্কিল বিষয়েও লেখালেখি করেন।

প্রশ্ন: আপনার ব্যবসার শুরুর গল্পটা জানতে চাই।

কাকলি রাসেল তালুকদার: আমার ব্যবসার শুরুটা হয়েছিল মূলত দেশীয় সব ধরনের শাড়ি নিয়ে তবে আস্তে আস্তে পরবর্তীতে আমি শুধু জামদানিতে ফোকাস করি। আমি যখন  উই গ্রুপে জয়েন করি তখন দেখতাম শ্রদ্ধেয় রাজীব আহমেদ স্যার দেশীয় পণ্যের প্রচার বৃদ্ধির জন্য সবাইকে দেশীয় পণ্য নিয়ে লেখালেখি করার জন্য উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছিলেন। যেহেতু জামদানি নিয়ে আমার অভিজ্ঞতা ছিল সেই সুযোগে আমি জামদানি নিয়ে লেখা শুরু করি এবং যার জন্য একসময় স্যারের পরামর্শে আমি শুধু জামদানি নিয়ে আমার উদ্যোগ শুরু করি। একটি পণ্য ফোকাস করলে সেই পণ্য নিয়ে ভালোভাবে কাজ করা যায়। সেই থেকে আমার উদ্যোগের যেকোন সিদ্ধান্ত আমি স্যারের সাথে পরামর্শ করেই নিয়ে থাকি। আমার আজকের এই পর্যন্ত আসার পেছনে শ্রদ্ধেয় রাজীব আহমেদ স্যারের অবদান সবচেয়ে বেশি।

প্রশ্ন: কেন দেশীয় পণ্য জামদানি নিয়ে কাজ করার আগ্রহ হলো?

কাকলি রাসেল তালুকদার: জামদানি নিয়ে আমার আগ্রহ ছোটবেলা থেকেই। যখন আমার মাকে জামদানি পরতে দেখতাম তখন থেকেই এর প্রতি আমার আলাদা একটা আকর্ষণ কাজ করতো। জামদানির প্রতি ভালোবাসা থেকেই যখন কলেজ লাইফ শুরু করি তখন থেকে  একটানা সাত বছর জামদানি নিয়ে জানার চেষ্টা করেছি। আমার সেই চেষ্টা এবং জামদানি নিয়ে যে জ্ঞান অর্জন করেছি তারই ফলস্বরূপ যখন নিজের উদ্যোগ গ্রহণ করি তখন জামদানি ছিল মূল ফোকাস। প্রশ্নঃ আপনার প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জানতে চাই..।

কাকলি রাসেল তালুকদার: আমার প্রতিষ্ঠানের নাম কাকলি'স এট্যায়ার। এখানে দেশীয় ঐতিহ্যবাহী পণ্য জামদানি নিয়ে কাজ হয়। এটি একটি অনলাইন ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান। কাকলি'স এট্যায়ারের মূল উদ্দেশ্য অনলাইনের মাধ্যমে জামদানিকে সর্বত্র ছড়িয়ে দেয়া। ফেসবুক পেজের মাধ্যমে আমরা আমাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকি। এছাড়া আমাদের কাকলি'স এট্যায়ার নামে একটি গ্রুপ আছে যেখানে জামদানি নিয়ে আলাপ আলোচনা হয়ে থাকে। আমাদের একটি ওয়েবসাইট আছে যেখানে কাস্টমারের রিভিউসহ জামদানি বিষয়ে সব ধরনের তথ্য তুলে ধরার কাজ চলছে। ফেসবুক পেজ এবং মোবাইল কলের মাধ্যমে আমরা অর্ডার নিয়ে থাকি। আমাদের সব পণ্য হোম ডেলিভারি দেয়া হয় এবং ক্যাশ অন এবং বিকাশের মাধ্যমে কাস্টমার পেমেন্ট করতে পারেন। জামদানি নিয়ে এ পর্যন্ত আমাদের কয়েকটি ইভেন্ট হয়েছে তার মধ্যে জামদানি কাস্টমার মিট আপ সবার মাঝে সাড়া ফেলেছে আর সেখানে মূল আকর্ষণ ছিল জামদানি ব্রাইডাল শাড়ি।

প্রশ্ন: কাজ করতে গিয়ে কখনো কোনো  প্রতিবন্ধকতা বা বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছেন কি, যা মনে হলে এখনও কষ্ট পান?

কাকলি রাসেল তালুকদার: একজন উদ্যোক্তা হিসেবে আমাকে অবশ্যই কিছু প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হতে হয় এবং আগেও হয়েছি। কিন্তু কখনও সেসব বিষয়ে আমি নিজের সময় নষ্ট করিনি বা সেসব ভেবে কষ্টও পাইনি । কারণ কোন পথই সরল বা সহজ নয়। কিছু বাঁধা থাকবেই এবং সেগুলো অতিক্রম করেই সামনে এগিয়ে যেতে হবে। আর একজন নারী হিসেবে প্রতিবন্ধকতা থাকবেই কিন্তু তাই বলে থেমে থাকা যাবেনা।

প্রশ্ন: ব্যবসা নিয়ে আপনার পরিকল্পনা কী?

কাকলি রাসেল তালুকদার: আমার উদ্যোগ কাকলি'স এট্যায়ারের মাধ্যমে আমি জামদানিকে দেশের ৬৪ জেলা ছাড়িয়ে উপজেলা পর্যায়ে এবং দেশের বাহিরে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে নিয়ে যেতে চাই। ইতিমধ্যে আমার উদ্যোগের জামদানি দেশের ৬৪ জেলাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পৌঁছে গেছে। পরবর্তীতে ৫০০ উপজেলাকে টার্গেট করেই কাজ করছি। এছাড়াও জামদানি নিয়ে স্টার্টআপ করার পরিকল্পনা আছে।
জামদানির সাথে আমার নাম উচ্চারিত হয় এটা আমার জন্য একজন বাঙালি হিসেবে গর্বের ।কিন্তু আমি সব সময় নিজেকে দেশীয় পণ্যের একজন উদ্যোক্তা বলতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যভোধ করি।

শীর্ষ সংবাদ:
গবেষণায় করোনাকালীন নারীদের নানা প্রতিকূলতা         যেই ক্ষোভে তানিশাকে হত্যা করলো চাচাতো ভাই         কাবুলের স্কুলে বিস্ফোরণে প্রাণহানি ৪০         সহসাই খুলছে না বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত         টিকার দাম কমাতে রাশিয়াকে চিঠি         তোফায়েল আহমেদ সম্পূর্ণ সুস্থ আছেন         খালেদার বিদেশের ব্যাপারে যা বললেন তথ্যমন্ত্রী         এসএসসির ফরম পূরণের তারিখ ঘোষণা         বাংলাদেশিদের মালয়েশিয়া প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা         উদ্যানের বিষয়ে যা বললেন কাদের         শিমুলিয়া থেকে ছাড়ল ফেরি         গার্মেন্টস শ্রমিকদের বিক্ষোভ         কানাডায় কোভিড ভ্যারিয়েন্ট বাড়ছে         খালেদার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত আজ         হাসপাতালে ভর্তি তোফায়েল আহমেদ         ইতালিতে করোনায় চার বাংলাদেশির মৃত্যু         জনকণ্ঠের চাকরিচ্যুতদের পুনর্বহালের দাবি বিএফইউজে‘র         নির্মল বন্ধুত্ব চাই!         শনিবার থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ