শনিবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭
২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
সর্বশেষ

‘করোনার ভ্যাকসিন আবিষ্কারে উপমহাদেশে আমরা দ্বিতীয়’

উইমেনআই২৪ ডেস্ক: ‘পৃথিবীতে মাত্র হাতেগোনা কয়েকটি দেশ ভ্যাকসিন আবিষ্কারে সক্ষম হয়েছে এবং উপমহাদেশে আমরা দ্বিতীয় দেশ যারা করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিষ্কার করেছি।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ সচিবালয়ে দেশি সংস্থা ‘গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের' করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিষ্কারক দলনেতা কাকন নাগ ও নাজনীন সুলতানার সঙ্গে শুভেচ্ছা বৈঠকে অংশ নিয়ে এ কথা বলেন। এ সময় ভ্যাকসিনের আবিষ্কারক এই দুই বিজ্ঞানীকে তিনি অভিনন্দন জানান। 
স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ, তথ্যসচিব খাজা মিয়া এবং সাবেক মুখ্যসচিব ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট আবদুল করিম সভায় যোগ দেন।

নতুন আবিস্কৃত এই ভ্যাকসিন সম্পর্কে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বঙ্গভ্যাক্সের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এটি সিঙ্গেল বা একক ডোজ টিকা। বিশ্বের অনেক টিকাই একাধিক ডোজের। কিন্তু এটি একক ডোজের হওয়ায় একবার নিলেই যথেষ্ট। এটি এখন ক্লিনিকাল ট্রায়ালের জন্য বাংলাদেশ মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিলের ইথিকস কমিটির অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। সমস্ত পরীক্ষা-অনুমোদন সম্পন্ন করে অতিদ্রুত এই ভ্যাকসিন জনগণের জন্য প্রয়োগের দিকে এগিয়ে যেতে পারবো বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এখন অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি, কবে বঙ্গভ্যাক্স আসবে এবং আমরা তখন অন্য দেশকেও এই ভ্যাকসিন দিয়ে সহায়তা দিতে পারবো।’

তথ্যমন্ত্রী উল্লেখ করেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের বিজ্ঞানীদের এ বিষয়ে গবেষণার আহ্বান জানিয়েছিলেন এবং এই দুই বিজ্ঞানীসহ তাদের দল সেই আহ্বানে সাড়া দিয়ে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে অতি অল্প সময়ে এই আবিষ্কারে সক্ষম হয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘এ কারণে বিজ্ঞানী কাকন নাগ ও নাজনীন সুলতানাকে আমি আন্তরিক অভিনন্দন জানাই এবং এই বিজ্ঞানী দু’জনই আমার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের একই বিভাগের রসায়নের ছাত্র। তাই তাদের জন্য বিশেষ গর্ব অনুভব করি। তারা প্রকৃতপক্ষে দেশের গর্ব।’

‘ভ্যাকসিন নিয়ে অনেক কথা হয়েছে’ উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘ভ্যাকসিন আসবে না -এই অপপ্রচার মিথ্যা প্রমাণ করে সময়মতো ভ্যাকসিন এসেছে, সব জেলা ও উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত পৌঁছে গেছে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘দেশের কিছু রাজনীতিক, বুদ্ধিজীবীর বক্তব্যে ও কিছু বিদেশি মিডিয়ায় করোনাকালে অনাহারে মৃত্যুর যে শংকা প্রকাশ করা হয়েছিল, তা মিথ্যে প্রমাণ হয়েছে। সরকার প্রায় সাত কোটি মানুষকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে, এককোটি ২৫ লাখ খাদ্য-প্যাকেট বিতরণ করেছে আওয়ামী লীগ।’

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (সিইউ) এর অধ্যাপক ড. মনির উদ্দীন, অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ হেলাল উদ্দীন, সিইউ এলামনাই এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক মনসুর আহমেদ, ট্রেজারার ফখরুল আহসান, নির্বাহী সদস্য আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, সিইউ এক্স স্টুডেন্টস ক্লাবের প্রেসিডেন্ট আমিন হেলালী, ইউনিভার্সেল মেডিক্যাল কলেজের চেয়ারপার্সন প্রীতি চক্রবর্তী, বৈজ্ঞানিক সহকারী শামীম আহমেদ, আব্দুল্লাহ আল মাকসুদ, রিপন নাগ, কাকন নাগ-নাজনীন সুলতানা বিজ্ঞানী দম্পতির কন্যা শান্তি নাগ অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

Mujib Borsho

সর্বশেষ সংবাদ

লিড