শনিবার, ৯ কার্তিক ১৪২৭
২৪ অক্টোবর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
যুক্ত থাকুন

আর্কাইভ
আমাদের ওয়েবসাইট www.womeneye24.com সংস্কারের কাজ চলছে। সাময়িক অসুবিধার জন্য আমরা দু:খিত
সর্বশেষ

‘‘৩৬ বছর পর ধর্ষককে চিহ্নিত করতে পেরেছে ডিএনএর এই পরীক্ষা’’

‘‘৩৬ বছর পর ধর্ষককে চিহ্নিত করতে পেরেছে ডিএনএর এই পরীক্ষা’’

শওগাত আলী সাগর

ক্রিস্টিন জেসপ যখন হারিয়ে যায় তখন তার বয়স মাত্র ৯ বছর। সেটা ৩৬ বছর আগের কথা। প্রায় তিন মাস পর নববর্ষের আগ মুহুর্তে তাকে খুঁজে পাওয়া যায়, মৃতদেহে অসংখ্য ছুরিকাঘাতের ক্ষত। পরীক্ষায় নিশ্চিত হ্ওয়া যায় ৯ বছরের ক্রিস্টিন ধর্ষণের শিকার হয়েছিলো মৃত্যুর আগে।

পল মরিন নামে তাদের এক প্রতিবেশিকে গ্রেফতার করে পুলিশ, দুই দফায় তার বিচার হয় এবং তাকে জেলে পাঠানো হয়। ডিএনএ প্রযুক্তির অগ্রগতি ঘটলে ক্রিস্টিনের আন্ডারওয়্যার থেকে সেই সময়ে নমুনা হিসেবে সংগ্রহ করা সিমেনের পরীক্ষা করা হয়। কিন্তু সেটি মরিনের সঙ্গে মিলেনি। দুই বছর সাজা খাটার পর মরিনকে মুক্তি দেয় পুলিশ। শুধু তাই নয় ভুল বিচারে সাজা দেয়ার জন্য মরিনকে এক মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ দেয় সরকার। কিন্তু ৯ বছরের ক্রিস্টিনকে কে ধর্ষণ এবং খুন করেছে সেটি অজানাই রয়ে যায়।

গত পরশু টরন্টো পুলিশ ঘোষনা দিয়েছে – তারা ক্রিস্টিনের ধর্ষক এবং হত্যাকারীকে চিহ্নিত করতে পেরেছে। সে হচ্ছে আরেক প্রতিবেশি কালভিন হোভার। ৩৬ বছর আগের একটি ধর্ষণ এবং হত্যার ঘটনার সুরাহা এতো বছর পর কিভাবে করলো পুলিশ? উত্তর একটাই- ডিএন্এ পরীক্ষা।সেই ঘটনাও চমৎকার।

ডিএন্এ এনালাইসিসের একটি নতুন ধরনের পরীক্ষা শুরু হয়েছে প্রতিবেশি যুক্তরাষ্ট্রে। কানাডা এখনো এই পরীক্ষাটা শুরু করেনি।৩৬ বছর আগেকার সিমেন পরীক্ষা করে যুক্তরাষ্ট্রের ল্যাব থেকে যখন ‘নো ম্যাচ’ রিপোর্ট পাঠানো হয় তখন টরন্টো পুলিশ ‘জেনেটিক জিনিওলোজী’ এনালাইসিসের অনুরোধ জানায় যুক্তরাষ্ট্রকে। এই এনালাইসিসে যে ব্যক্তির সিমেনকে পরীক্ষার নমুনা হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে তার ’ফ্যামিলি ট্রি’ অদোপান্ত ওঠে আসে।এই পরীক্ষায় দুটি পরিবারের সদস্যদের নাম আসে পুলিশের সামনে। তার মধ্যে একটি নাম পাওয়া যায় যে কীনা ৩৬ বছর আগে প্রথম তদন্তে পুলিশের ‘পার্সন অব ইন্টারেস্ট’ ছিলো, কিন্তু কোনোভাবে তদন্ত প্রক্রিয়া থেকে ফসকে গেছে। পরবর্তী এনালাইসিসে ল্যাব নিশ্চিত করে এই সিমেনের ম্যাচ হচ্ছে ক্যালভিন হোভার।

পুলিশের নতুন এই ঘোষনার পর কুইন্সভিলের সিমেট্টিতে ছুটে যান- পল মরিন। হলুদ ফুলের একটি তোড়া তার সমাধিতে রাখেন তিনি। ফুলের সেই তোড়াটার সাথে গাঁথা আছে কয়েকটি লাইনের ছোট্ট একটি নোট-’তোমার সাথে আমার কখনোই দেখা হয়নি। কিন্তু তোমাকে যারা জানতো এবং ভালোবাসতো তাদের আমি জানি। তোমার সুন্দর আত্মা এখন অন্তত শান্তিতে ঘুমাক’।

পুনশ্চ: ‘জেনেটিক জিনিওলোজী’- টার্মটা মাথার মধ্যে বেশ ঘুরপাক খাচ্ছে। ৩৬ বছর পর ধর্ষককে চিহ্নিত করে দিতে পেরেছে ডিএন্এর এই পরীক্ষা। ভবিষ্যতে আরো কতো রহস্যের সমাধান করে দেবে এই পরীক্ষাটা! নিশ্চয় একদিন বিশ্বের সবদেশেই এই পরীক্ষার প্রযুক্তিটা ছড়িয়ে পড়বে! (ফেসবুক থেকে নেয়া)

Mujib Borsho

সর্বশেষ সংবাদ

লিড

শীর্ষ সংবাদ:
সাবেক ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই         শনিবারেও ঢাকাসহ সারাদেশে ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা         দুর্বল হচ্ছে নিম্নচাপ         প্লাজমা থেরাপি করোনায় মৃত্যুঝুঁকি কমায় না : গবেষণা         বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় জাতিসংঘের জোরালো ভূমিকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর         আমার কাছে নাচই হচ্ছে আমার প্রথম প্রেম : অনন্যা ওয়াফি রহমান         শতবর্ষে প্রথম, বদলালো টাইমসের লোগো         নামাজ পড়তে অসুবিধা হওয়ায় অভিনয় ছেড়েছেন চিত্রনায়িকা         শুভ জন্মদিন পেলে         স্মৃতির জানালা         শাহজালালে উড়োজাহাজের সিটের নিচে মিলল ৬৮ স্বর্ণের বার         মেঘগুলো হারালো         যৌন নির্যাতন-নিপীড়নের শিকার ১৩৪ শিশু উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৪৪         শান্ত দিঘি         শান্তা মারিয়ার গল্প         আন্দোলনের নামে বিএনপি’র কেবল তর্জন-গর্জনই সার : ওবায়দুল কাদের         করোনা, বর্ণবাদ ও জলবায়ু নিয়ে দ্বন্দ্বে ট্রাম্প-বাইডেন         রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে চীনকে প্রতিশ্রুতি মিয়ানমারের         উপকূল অতিক্রম করছে নিম্নচাপ         করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসিইউতে বেলজিয়ামের উপপ্রধানমন্ত্রী         দেশে কমল করোনায় মৃত্যু ও আক্রান্ত